স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: তিন তালাক নিয়ে তাদের আন্দোলন সাফল্যের মুখ দেখেছে আগেই৷ এবার তারা সরব হতে চায় লাভ জিহাদের বিরুদ্ধে৷ তাই আজ, বৃহস্পতিবার বিকেলে একটি সাংবাদিক বৈঠকের ডাক দেওয়া হয়েছে প্রগতিশীল মুসলিম সমাজের পক্ষ থেকে৷

তিন তালাক থেকে লাভ জিহাদ, আইনকে আরও কঠোর করার দাবিতে সরব হতেই এদিনের সাংবাদিক বৈঠকের আয়োজন করেছে ওই সংগঠন৷ তাদের কাজি মাসুম আখতারের বক্তব্য, ‘‘সারা দেশে লাভ জেহাদের বলি মোট ক’জন হয়েছে? তবুও আমরা তার বিরুদ্ধে সোচ্চার কেন? কারণ, এটি ধর্মের নামে অনাচার৷’’ তাঁর অভিযোগ, এখানে হৃদয়ের চেয়ে ধর্মকে বড় করে দেখানো হচ্ছে৷ আর এটাকে বড় অধর্ম হিসেবে তিনি ব্যাখ্যা করেছেন৷ তাই তাঁর দাবি, ধর্মের নামে এই ধরনের হিংসাত্মক ঘটনা বন্ধ হওয়া দরকার৷ প্রয়োজনে আরও কঠোর আইন তৈরি করতে হবে৷

আরও পড়ুন: তিন তালাক নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের রায়কে ঐতিহাসিক বললেন বিদেশ প্রতিমন্ত্রী

লাভ জিহাদের মৃত্যুর সংখ্যা কম হলেও সকলেই এর বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন৷ তেমনই তিন তালাকের ক্ষেত্রেও সরব হওয়া উচিত বলেই তিনি মনে করেন৷ কারণ, তাৎক্ষণিক তিন তালাক খুব বেশি হয়নি বলে দাবি করে অনেকেই এই ইস্যুটিকে ছোট করে দেখাতে চান বলে কাজি মাসুম আখতারের অভিযোগ৷ কিন্তু এই বিষয়টিও সমান গুরুত্বপূর্ণ৷তাঁর প্রশ্ন, ‘‘অত্যাচারিতের সংখ্যা এক লক্ষ হোক, এক হাজার হোক, এক শত হোক বা এক জন৷ কেন ধর্মের নামে এই একুশ শতকে পুরুষ তান্ত্রিক পাপাচার মেনে নেব?’’

কাজি মাসুম আখতারের দাবি, তাঁরা তিন তালাক নিয়ে যে আন্দোলন গড়েছিলেন, তা সফল হয় সুপ্রিম কোর্টের রায়ের পর৷ সেই রায়ে সুপ্রিম কোর্ট তিন তালাক রুখতে কেন্দ্রীয় সরকারকে আইন তৈরি করতে বলেছে৷ ফলে বল এখন কেন্দ্রের কোর্টে৷ তাই ওই সংগঠন চায় দ্রুত কেন্দ্র এ বিষয়ে পদক্ষেপ করুক৷ তাই তারা রাষ্ট্রপতি প্রধানমন্ত্রী ও আইনমন্ত্রীর কাছে এ নিয়ে কঠোর শাস্তির প্রস্তাব পাঠানো হবে৷ সেই প্রস্তাবের খসড়া আজ সাংবাদিক বৈঠকে সকলকে দেখানো হবে বলেও তিনি জানান৷

আরও পড়ুন: তিন তালাকের বিরুদ্ধে আওয়াজ তুলে ‘নিখোঁজ’ ইশরাতের ছেলে-মেয়ে

ওই অনুষ্ঠানে সমাজের বিশিষ্ট অংশের মানুষের উপস্থিত থাকার কথা৷ তাঁদের মধ্যে সাহিত্যিক শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়, সুপ্রিম কোর্টের প্রাক্তন বিচারপতি অশোককুমার গঙ্গোপাধ্যায়-সহ অন্যরা৷