ফাইল ছবি। ঘটনার সঙ্গে কোনও যোগ নেই।

ভোপাল: উলটপুরাণ! শ্লোগান দিতে বাধা দেওয়ায় নিজের পা ছুঁয়ে ক্ষমা চাইতে শিক্ষককে বাধ্য করল ছাত্র! এমনই ছবি ধরা পড়ল ক্যামেরায়৷ মধ্যপ্রদেশের মান্দাসৌরের রাজীব গান্ধী পিজি কলেজের এই ছবি নাড়িয়ে দিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়াকে৷

এই কলেজে ক্লাস চলাকালীন ‘ভারত মাতা কি জয়’ শ্লোগান দিচ্ছিল অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদ বা এবিভিপির ছাত্ররা৷ বিজ্ঞান বিভাগের চতুর্থ সেমিস্টার পরীক্ষার ফল প্রকাশে দেরির প্রতিবাদে অধ্যক্ষকে স্মারকলিপি জমা দিতে যাচ্ছিল এবিভিপির সদস্যরা। সেই কর্মকাণ্ডে বাধা দিয়েছিলেন অধ্যাপক দীনেশ গুপ্তা। তারপরেই শুরু হয় তাঁকে নানা ভাবে হেনস্থা৷ এমনকী অধ্যাপককে দেশদ্রোহী বলে কটাক্ষ করে এবিভিপি–র সদস্যরা। ওই অধ্যাপককে ক্ষমা চাইতে বলে৷

অপমানিত অধ্যাপক বিক্ষোভকারীদের পা ছুঁয়ে প্রণাম করেন। আর সঙ্গে সঙ্গে ছুটির আবেদন করেন কলেজ কর্তৃপক্ষের কাছে৷ দিন তিনেকের ছুটি নিয়েছেন তিনি৷ বুধবার এই ঘটনা ঘটে৷ তবে এই ঘটনায় সঙ্গে সঙ্গে সাফাই দিয়েছে এবিভিপি৷ তাদের সদস্যরা রীতিমতো লজ্জিত বলে জানিয়েছে এই সংগঠন৷ তবে ততক্ষণে এই ভিডিও ভাইরাল হয়ে গিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়৷

পুরো ঘটনাটি রং চড়িয়ে বলা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন স্থানীয় বিজেপি বিধায়ক যশপাল সিসোদিয়া। তবে ছাত্রদের দোষী থাকলে সেবিষয়ে তাদের জিজ্ঞাসা করে অধ্যাপকের কাছে তাদের ক্ষমা চাইতে বলবেন বলেও জানিয়েছেন বিধায়ক।

কলেজের প্রিন্সিপাল রবীন্দ্র সোহনি ওই অধ্যাপকের পক্ষেই কথা বলেছেন তিনি বলেন অধ্যাপক এবিভিপির ছাত্রদের ভারত মাতা কি জয় শ্লোগান দিতে বারণ করেননি৷ তিনি বলেছিলেন কলেজ ক্যাম্পাসে শ্লোগান না দিতে৷ কারণ এখানে ক্লাসে পড়াশুনা চলছে৷ কিন্তু তারপরেই গা জোয়ারি শুরু করে ওই ছাত্ররা৷ অধ্যাপককে ক্ষমা চাইতে বলা হয়৷

গোটা ঘটনায় সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝড় উঠেছে৷ গোটা ঘটনার নিন্দা করেছেন নেটিজেনরা৷ কলেজের মধ্যে দাদাগিরি ফলিয়ে শ্লোগান দিতে যাওয়া ছাত্রদের সমালোচনায় মুখর হয়েছে ট্যুইটার৷ গোটা ঘটনাটি তদন্ত করে দেখছে কলেজ কর্তৃপক্ষ৷