ভুবনেশ্বর: দু’দিন আগে সক্রিয় রাজনীতিতে যোগ দিয়েছেন প্রিয়াঙ্কা গান্ধী৷ কিন্তু অনেক আগেই বোন প্রিয়াঙ্কাকে রাজনীতিতে নিয়ে আসার সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছিলেন দাদা রাহুল৷ শুক্রবার ভুবনেশ্বরের টাউন হলে রাহুল বলেন, ‘‘ওঁকে অনেক আগে রাজনীতিতে আসার কথা বলেছিলাম৷ কিন্তু প্রিয়াঙ্কা সেই সময় পরিবার ও সন্তানদের উপর নজর দিতে চেয়েছিল৷ কারণ তখন তাঁর দুই সন্তান অনেকটাই ছোট ছিল৷ এখন তারা বড় হয়েছে৷ তাই এই সময় কংগ্রেস দলে যোগ দিয়েছে প্রিয়াঙ্কা৷’’

প্রিয়াঙ্কার সঙ্গে রাহুলের বয়সের ফারাক মাত্র এক বছর৷ কিন্তু তাদের মানসিকতার ফারাক সামান্য৷ রাহুল এদিন বলেন, ‘‘আমাদের দু’জনকে যদি আলাদা ঘরে বসতে বলা হয় এবং দু’জনকে একই প্রশ্ন করা হলে ৮০ শতাংশ উত্তর মিলে যাবে৷’’ সক্রিয় রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত না হয়েও প্রিয়াঙ্কার সঙ্গে অনেক বিষয় আলোচনা করেন রাহুল৷ বেশ কিছু ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিতে দাদাকে সাহায্য করেন প্রিয়াঙ্কা৷

রাজনীতিতে আসার পর প্রিয়াঙ্কাকে দলের সাধারণ সম্পাদক নিযুক্ত করা হয়েছে৷ দেওয়া হয়েছে উত্তরপ্রদেশের দায়িত্ব৷ রাহুল এদিন জানান, আপাতত উত্তরপ্রদেশের দায়িত্বেই থাকছে প্রিয়াঙ্কা৷ অন্য রাজ্যের দায়িত্ব তাঁকে দেওয়া নিয়ে কোনও সিদ্ধান্ত হয়নি৷

বুধবারই সক্রিয়ভাবে রাজনীতিতে সোনিয়া-কন্যার প্রবেশের কথা ঘোষণা করা হয়েছে৷ বিদেশ থেকে ফিরে ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহেই কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বে আসীন হয়ে সরাসরি রাজনীতিতে যোগ দিতে চলেছেন প্রিয়াঙ্কা গান্ধী বঢরা৷ দল থেকে, পরিবারের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছাও জানাচ্ছেন সকলে৷ আর লোকসভা নির্বাচনের আগে সোনিয়া কন্যার এই আগমনে অন্যরকম সমীকরণ নিয়েও সেইসঙ্গে চলছে চিন্তা-ভাবনা৷

সোনিয়া-কন্যার রাজনীতিতে আসার খবরে স্বভাবতই উচ্ছ্বসিত কংগ্রেস কর্মী সমর্থকেরা৷ অনেকেই স্পষ্ট জানালেন, ‘দুসরি ইন্দিরা গান্ধী আয়ি হ্যায়’ অর্থাৎ দ্বিতীয় ইন্দিরা গান্ধী এলেন৷ এক্ষেত্রে প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর চেহারা-ব্যক্তিত্বের সঙ্গে প্রিয়াঙ্কার চেহারার সামঞ্জস্য যে অনেকটাই কাজ করছে তা বলাই বাহল্য৷ এই বিষয়টিকে কাজে লাগানোর পাশাপাশি প্রিয়াঙ্কার যে পজিটিভি ইমেজ রয়েছে আমজনতার কাছে, কংগ্রেস আসন্ন লোকসভা নির্বাচনকে মাথায় রেখে তা যে কাজে লাগাতে চাইছে, এমনটাই মনে করছে রাজনৈতিক মহল৷