লখনউ: কানপুরে পুলিশি এনকাউন্টারে মাফিয়া ডন বিকাশ দুবের মৃত্যুর ঘটনায় যোগী আদিত্যনাথের সরকারের সমালোচনায কংগ্রেস নেত্রী প্রিয়াঙ্কা গান্ধী। তাঁর কথায়, ‘যাঁরা এতদিন বিকাশকে বাঁচাচ্ছিলেন, এবার তাঁদের কী হবে?’। উত্তরপ্রদেশের বিজেপি সরকারকেই এব্যাপারে নাম না করে নিশানা করেছেন সোনিয়া-কন্যা।

কানপুরের ত্রাস বিকাশ দুবের এনকাউন্টার নিয়ে বিতর্ক ক্রমেই বাড়ছে। এবার কংগ্রেসনেত্রী প্রিয়াঙ্কা গান্ধীও মুখ খুলেছেন এই এনকাউন্টার নিয়ে। এনকাউন্টারে বিকাশের মৃত্যু নিয়ে যোগী আদিত্যনাথের সরকারকেই প্রশ্নের মুখে ঠেলে দিয়েছেন প্রিয়াঙ্কা।

সোশাল মিডিয়ায় একটি ভিডিও প্রকাশ করে প্রিয়াঙ্কা বলেন, ‘বিকাশ তো চলে গিয়েছে। কিন্তু এতদজিন তাকে যাঁরা সুরক্ষা দিয়ে রেখেছিলেন এবার তাঁদের কী হবে?’ ওয়াকিবহাল মহলের ব্যাখ্যা নাম না করে পরোক্ষে রাজ্য সরকারের একাংশকেই দায়ী করেছেন প্রিয়াঙ্কা।

মাফিয়া ডন বিকাশ দুবের সঙ্গে একাধিক রাজনৈতিক নেতার যোগাযোগ ছিল। প্রশাসনেও ভালোরকম প্রভাব বিস্তার করেছিল বিকাশ। ইতিমধ্যেই বিকাশকে সাহায্য করার অভিযোগে বেশ কয়েকজন পুলিশকর্মীকে সাসপেন্ড করেছে উত্তরপ্রদেশ পুলিশ।

তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় তদন্তও শুরু হয়েছে। উত্তরপ্রদেশের প্রশাসনের তাবড় কর্তাদের সঙ্গে বিকাশের যোগ ছিল বলে মনে করা হচ্ছে। সেই কারণেই বিকাশের মৃত্যুর পর এবার রাজ্য সরকারকে নিশানা করেছেন প্রিয়াঙ্কা।

শুক্রবার ভোরে উত্তরপ্রদেশের কানপুরে এনকাউন্টারে খতম হয় কুখ্যাত দুষ্কৃতী বিকাশ দুবে। ৬০টিরও বেশি অপরাধমূলক মামলা ছিল বিকাশের নামে।

মধ্যপ্রদেশ থেকে উত্তরপ্রদেশের কানপুরে ফেরার সময় পুলিশের বন্দুক ছিনিয়ে পালানোর চেষ্টা করে বিকাশ। আত্মসমর্পণ করতে বলে পুলিশ। এরপরেও পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে ওই দুষ্কৃতী। কানপুরের কাছেই পুলিশের পাল্টা গুলিতে বিকাশের মৃত্যু হয়।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ