বিশাখাপত্তনম: বিশ্বকাপে সুযোগ হারিয়েছেন, আইপিএলে সেই পন্তই এখন উজ্জ্বল নক্ষত্র৷ তাঁর কাঁধে ভর করেই এলিমিনেটরের গাঁট টপকে দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে পৌঁছে গেল দিল্লি ক্যাপিটালস৷ বুধবার সানরাইজার্সের বিরুদ্ধে চাপের মুহূর্তে ২১ বলে ৪৯ রানের মারকাটারি ইনিংস খেলেন ঋষভ৷ ইনিংস সাজানো ২টি চার ও ৫টি ছয় দিয়ে৷

আরও পড়ুন- ওয়ার্নার আইপিএল থেকে দেশে ফিরতেই সূর্যাস্ত সানরাইজার্সের

যদিও ম্যাচ শেষ করে আসতে পারেননি পন্ত৷ মাত্র ১ রানের জন্য অর্ধশতরানও হাতছাড়া করেন দিল্লির তরুণ উইকেট কিপার ব্যাটসম্যান৷ ভারতীয় দলে ধোনির উত্তরসূরি হিসেবে তাঁকে মনে করা হলেও ম্যাচ ফিনিশ করে না আসায় তাঁর পরিণত বোধ নিয়ে ক্রিকেটমহলে চর্চা তুঙ্গে৷ সমালোচনা যাই হোক না কেন পন্তের হয়ে ব্যাট ধরলেন দিল্লি ফ্র্যাঞ্চাইজিতে তাঁর সতীর্থ পৃথ্বী শ৷ পন্তকেই বর্তমান সময়ে তরুণদের মধ্যে সেরা ফিনিশার মনে করছেন পৃথ্বী৷

আরও পড়ুন- দু’ মিনিটের ‘থ্রিলারে’ ভ্যানিশ আইপিএল ফাইনালের টিকিট

ক্যাপিটালসের ওপেনার ম্যাচ শেষে পন্তের ইনিংসের প্রশংসা করে বলেন, ‘আমি মনে করি পন্ত আমাদের প্রজন্মের সেরা ফিনিশার৷ যেকোনও মুহূর্তে ম্যাচের রঙ পাল্টে ফেলার ক্ষমতা রাখে৷ ভাগ্য সাথ না দেওয়ায় হাফ সেঞ্চুরি মাঠে ফেলে এসেছে৷ কোনও সন্দেহ নেই পন্ত দারুণ ক্রিকেটার৷’

আরও পড়ুন- পন্ত থেকে আর্চার, বিশ্বকাপের ‘আনলাকি’ ক্রিকেটার

পন্তের মতো ব্যাট হাতে ম্যাচের রঙ পাল্টে দিয়েছেন তরুণ পৃথ্বী শ৷ ওপেনিংয়ে নেমে ৬টি চার ও ২টি ছয়ের সাহায্যে ৩৮ বলে ৫৬ রানের ইনিংসে জয়ের ভিত গড়ে দেন পৃথ্বী৷ চলতি আইপিএলে এটি পৃথ্বীর দ্বিতীয় অর্ধশতরান৷

নিজের ইনিংস সম্পর্কে পৃথ্বী বলেন, ‘সৌরভ স্যার থেকে পন্টিং স্যার, দলের সিনিয়ররা আমার উপর আস্থা রেখেছিলেন৷ এলিমিনেটরের মতো গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে দলের জয়ে অবদান রাখতে পারায় আত্মবিশ্বাস ফিরে পেলাম৷’
প্রসঙ্গত এলিমিনেটরে প্রথমে ব্যাট করে ৮ উইকেট হারিয়ে ১৬২ রান তোলে সানরাইজার্স৷ জবাবে ১ বল বাকি থাকতে ২ উইকেটে ম্যাচ জিতে নেয় দিল্লি ক্যাপিটালস৷

আরও পড়ুন- সেহওয়াগের রেকর্ড ভাঙলেন পন্ত