ভদোদরা: অনিচ্ছাকৃত ডোপিংয়ের দায়ে দীর্ঘ ৮ মাসের নির্বাসন কাটিয়ে মাঠে ফেরা যাবৎ দুরন্ত ফর্মে রয়েছেন মুম্বইয়ের তরুণ ওপেনার পৃথ্বী শ৷ সৈয়দ মুস্তাক আলি টি-২০’তে রাজ্য দলের হয়ে কাম ব্যাকেই অনবদ্য ব্যাটিং করেন পৃথ্বী৷ গ্রুপ লিগ ও সুপার লিগ মিলিয়ে মোট পাঁচটি ম্যাচে মাঠে নেমে তিনটি হাফ-সেঞ্চুরি ও দু’টি ৩০ রানের ইনিংস আগ্রাসী ইনিংস খেলেন তিনি৷ পাঁচ ম্যাচে তাঁ ব্যক্তিগত সংগ্রহ ছিল যথাক্রমে ৬৩, ৩০, ৬৪, ৩০ ও ৫৩৷

ধারাবাহিকতা বজায় রাখেন রঞ্জি ট্রফির প্রথম ম্যাচেও৷ বরোদার বিরুদ্ধে প্রথম ইনিংসে মুম্বইয়ের হয়ে ওপেন করতে নেমে ১১টি চার ও ১টি ছক্কার সাহায্যে ৬২ বলে ৬৬ রানের ঝোড়ো ইনিংস খেলেন পৃথ্বী৷ পরে দ্বিতীয় ইনিংসে দুরন্ত ডাবল সেঞ্চুরি করেন টিম ইন্ডিয়ার হয়ে দু’টি টেস্ট খেলা তরুণ ওপেনার৷

আরও পড়ুন: পোলার্ডের লড়াই ব্যর্থ করে টি-২০ সিরিজ জিতল ভারত

দ্বিতীয় ইনিংসের গোড়াপত্তন করতে নেমে পৃথ্বী মাত্র ১৭৯ বলে ২০২ রান করে আউট হন৷ দ্বিতীয় দফায় তিনি ১৯টি চার ও ৭টি ছক্কা মারেন৷ পৃথ্বী দ্বি-শতরান পূর্ণ করেন ১৭৪ বলে৷ রঞ্জি ট্রফির ইতিহাসে এটি তৃতীয় দ্রুততম ডাবল সেঞ্চুরি৷ ১৯৮৫ সালে বরোদার বিরুদ্ধেই মুম্বইয়ের রবি শাস্ত্রী মাত্র ১২৩ বলে দ্বি-শতরান করেছিলেন৷ ১৯৯১ সালে বিহারের বিরুদ্ধে অসমের রাজেশ বোরা ১৫৬ বলে ডাবল সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন৷ পৃথ্বীর ইনিংসটি রয়েছে ঠিক তাঁদের পিছনেই৷ ২০১৫ সালে মুম্বইের শ্রেয়স আইয়ার পঞ্জাবেলর বিরুদ্ধে ১৭৫ বলে ডাবল সেঞ্চুরি করেন৷ পৃথ্বী ভেঙে দেন শ্রেয়সের রেকর্ড৷ পৃথ্বী কেরিয়ারের নবম ফার্স্ট ক্লাস সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন মাত্র ৮৪ বলে৷

আরও পড়ুন: বিবাহবার্ষিকীতে অনুষ্কাকে স্মরণীয় উপহার কোহলির

পৃথ্বীর দ্বি-শতরান ও ক্যাপ্টেন সূর্য্যকুমার যাদবের ৭০ বলে ১০২ রানের সুবাদে দ্বিতীয় ইনিংসে মুম্বই ৬৬.২ ওভারে ৪ উইকেটের বিনিময়ে ৪০৯ রান তুলে দ্বিতীয় ইনিংস ডিক্লেয়ার করে দেয়৷ প্রথম ইনিংসের নিরিখে ১২৪ রানে পিছিয়ে থাকা বরোদার সামনে জয়ের লক্ষ্যমাত্রা দাঁড়ায় ৫৩৪ রানের৷ তৃতীয় দিনের শেষে বরোদা তাদের দ্বিতীয় ইনিংসে ৩ উইকেটের বিনিময়ে ৭৪ রান তুলেছে৷

প্রশ্ন অনেক: দ্বিতীয় পর্ব