নয়াদিল্লি : ভারতীয় সেনার প্রশংসায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (PM Narendra Modi)। এদিন সেনার সশস্ত্র বাহিনীর উচ্চ প্রশংসা করেন তিনি (Modi appreciates armed force)। করোনা পরিস্থিতিতেও যেভাবে দেশের সীমানা পাহারা দিয়েছে সেনা (situation on northern border), তা রীতিমতো চ্যালেঞ্জের। এই চ্যালেঞ্জ সাফল্যের সাথে পেরিয়ে ভারতীয় সেনা বলে জানান প্রধানমন্ত্রী মোদী। প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের উদ্যোগে আয়োজিত কম্বাইন্ড কমান্ডার কনফারেন্সের (Combined Commanders Conference) অনুষ্ঠানে এই বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রী (PM)।

এদিন গুজরাতের কেভাদিয়াতে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে প্রতিরক্ষা মন্ত্রক। চিফ অফ ডিফেন্স স্টাফ বিপিন রাওয়াত এদিন প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে অনুষ্ঠানে ছিলেন। ছিলেন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিংও। এই উচ্চপর্যায়ের অনুষ্ঠানে এই প্রথম জওয়ানরাও আমন্ত্রিত ছিলেন। দেশের নিরাপত্তা ও সুরক্ষার সঙ্গে কোনও আপোষ নয়, এদিন বার্তা দেন মোদী। তিনি বলেন সেই নীতি ভরসা রেখেই জওয়ানরা দেশকে রক্ষা করে আসছে।

দেশের সেনাকে ফিউচার ফোর্স বলে ব্যাখ্যা করেন মোদী। এজন্য সেনার পরিকাঠামোতে আরও পরিবর্তন নিয়ে আসা হবে বলে জানানো হয়েছে। নিজের বক্তৃতায় প্রধানমন্ত্রী সেনাদের উদ্দেশ্যে বলেন, “মাতৃভূমির প্রতি আপনাদের সাহসিকতা সারা বিশ্বজুড়ে অতুলনীয়।” প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রত্যেক ভারতবাসী বিশ্বাস করে, ভারতীয় সেনারা প্রত্যেকে দেশকে শক্তিশালী ও সুরক্ষিত করতে পারে।

সেনা জওয়ানদের উদ্বুদ্ধ করার লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যে পরিস্থিতিতে আপনারা কঠোর পরিশ্রমে নিজেদের সবটা উজাড় করে দিচ্ছেন, তাতে বারবার প্রমাণিত হয় ভারতীয় সশস্ত্র বাহিনী বিশ্বের সবার চেয়ে শক্তিশালী এবং উন্নত। এর আগে, ফেব্রুয়ারি মাসে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর হাত ধরে সেনায় যোগ দেয় আরও ১১৮টি অর্জুন ট্যাংক। প্রধানমন্ত্রী মোদী যোগ দেন তামিলনাড়ু ও কেরলের বেশ কয়েকটি অনুষ্ঠানে। প্রতিটি অনুষ্ঠানেই বেশ কয়েকটি প্রকল্প উদ্বোধন করার কথা ছিল প্রধানমন্ত্রীর। সেখানেই সেনার হাতে ১১৮টি ট্যাংক তুলে দেন মোদী।

উল্লেখ্য, গত বছরই ১৮টি ট্যাংক বানানোর জন্য চেন্নাইয়ের কমব্যাট ভেহিকলস রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট এসট্যাবলিশমেন্ট বা সিভিআরডিইকে বরাত দিয়েছে প্রতিরক্ষা মন্ত্রক। অর্জুন মার্ক ১ এ হাতে রয়েছে সেনার। অর্জুন মার্ক ১ এ ট্যাংকই দেশবাসীকে উৎসর্গ করেন প্রধানমন্ত্রী। এক উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকে প্রতিরক্ষা মন্ত্রক ১১৮টি অর্জুন ট্যাংকের নিয়োগে সম্মতি দিয়েছে। এজন্য খরচ হবে ৮৪০০ কোটি টাকা। স্থলপথে যুদ্ধে সেনা বাহিনীর শক্তি আরও বাড়াবে অর্জুন ট্যাংকের অত্যাধুনিক ভার্সন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.