কটক: করোনা রুখতে নরবলি। ওড়িশার কটকের একটি মন্দিরের পুরোহিত কাটা মুণ্ড নিয়ে পুজো সারলেন। পরে নিজেই থানায় গিয়ে আত্মসমর্পণ করেছেন ওই ব্যক্তি। ভগবানের ‘আদেশ’ পেয়েই নাকি তিনি এই কাজ করেছেন। পুলিশের কাছে এমনই স্বীকারোক্তি সত্তরোর্ধ ওই বৃদ্ধের।

কটকের নরসিংহপুরের বাঁধহুদা গ্রামের মন্দিরের পুরোহিতের বিরুদ্ধে স্থানীয় এক ব্যক্তিকে নৃশংসভাবে খুনের অভিযোগ উঠেছে। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, সংসারী ওঝা নামে ওই পুরোহিত স্থানীয় বাসিন্দা সরোজকুমার প্রধানকে খুনে অভিযুক্ত। মন্দিরের ভিতর থেকে খুনে ব্যবহৃত কুড়ুলটি উদ্ধার করেছে পুলিশ।

তবে স্থানীয়দের দাবি, অভিযুক্তের স্বীকারোক্তি সত্যি নয়। নিহত সরোজের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরেই একটি জমি নিয়ে বিবাদ চলছিল অভিযুক্ত পুরোহিতের। ব্যক্তিগত আক্রোশ মেটাতেই সরোজকুমার প্রধান নামে ওই ব্যক্তিকে মন্দিরের ভিতর নিয়ে গিয়ে কুপিয়ে খুন করেছে ওই পুরোহিত।

খুনের সঙ্গে করোনা চলে যাওয়ার তত্ত্ব সাজানো হয়েছে বলে দাবি স্থানীয় বাসিন্দাদের। অভিযুক্ত পুরোহিতের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেছেন এলাকাবাসী।

এদিকে, পুলিশও খুনের পিছনে সঠিক কারণ জানতে শুরু করেছে তদন্ত। পুলিশ জানিয়েছে, মত্ত অবস্থায় খুন করেছে ওই মন্দিরের পুরোহিত। পরে হুঁশ ফিরলে নিজেই থানায় যায় সে। পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করে ওই পুরোহিত। অভিযুক্তকে জেরা করে খুনের পিছনে অন্য কোনও কারণ আছে কিনা তা জানার চেষ্টা করছে পুলিশ।

কলকাতার 'গলি বয়'-এর বিশ্ব জয়ের গল্প