কলকাতা: ফের মধ্যবিত্তের মাথায় হাত। পর পর তিন দিন ঊর্ধ্বমুখী পেট্রোল-ডিজেলের দাম। দেশের পাঁচ রাজ্যে ভোটপর্ব মিটতেই ১৭ দিন পর মঙ্গলবারই এই মূল্যবৃদ্ধির সূত্রপাত। আন্তর্জাতিক বাজারে পেট্রো পণ্যের মূল্যবৃদ্ধির জেরেই পেট্রোল-ডিজেলের দাম বাড়ানো হয়েছে বলে জানানো হয়েছিল তেল সংস্থাগুলির তরফে। সেই রেশ চলে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত।

দেশের একাধিক মেট্রো শহরে পেট্রোল-ডিজেলের মূল্য একলাফে বৃদ্ধি পায় ২০-৩০ পয়সা। ফলস্বরূপ, বিগত তিন দিনে ঊর্ধ্বমুখী মূল্যের জেরে পেট্রোল ডিজেলের দাম বাড়ল যথাক্রমে ৪০-৫০ পয়সা ও ৫০-৬০ পয়সা। বুধবার দিল্লিতে ডিজেলের দাম ছিল ৮১.১২ টাকা। বৃহস্পতিবার সেই দাম ৩০ পয়সা বেড়ে দাঁড়াল ৮১.৪২ টাকা। আর লিটারপ্রতি পেট্রোলের দাম ২৫ পয়সা বেড়ে দাঁড়াল ৯০.৯৯ টাকা।

বুধবার কলকাতায় পেট্রোলের দাম ছিল ৯০.৯২ টাকা। বৃহস্পতিবার সেই দাম ২২ পয়সা বেড়ে দাঁড়াল ৯১.১৪ টাকা। সঙ্গে কলকাতায় লিটারপ্রতি ডিজেলের দাম বাড়ল ২৮ পয়সা। অর্থাৎ এক লিটার পেট্রোল নিতে গেলে খরচ করতে হবে আজ ৮৪.২৬ পয়সা। অন্যদিকে দেশের বাণিজ্য নগরী মুম্বাইতে লিটারপ্রতি পেট্রোলের দাম ২২ পয়সা বেড়ে দাঁড়াল ৯৭.৩৪ টাকা এবং লিটারপিছু ডিজেলের দাম ৩০ পয়সা বেড়ে দাঁড়াল ৮৮.৪৯ টাকা। চেন্নাইতে বৃহস্পতিবার পেট্রোল-ডিজেলের দাম বেড়ে দাঁড়াল যথাক্রমে ৯২.৯০ ও ৮৬.৩৫ টাকা।

প্রসঙ্গত, পশ্চিমবঙ্গ, কেরল, অসম, তামিলনাড়ু এবং পুদুচেরিতে বিধানসভা নির্বাচনে সময় পেট্রোল-ডিজেলের মূল্য যে কৃত্রিম ভাবে কমানো হয়েছিল, তার জেরে যে লোকসানের মুখে পড়তে হয়েছিল তেল বিপণনকারী সংস্থাগুলির, তা পূরণ করতে আগামী কয়েকদিন পেট্রোল-ডিজেলের মূল্য আরও বাড়তে পারে বলে মত বিশেষজ্ঞদের। এমনকি আন্তর্জাতিক বাজারে যতদিন না অপরিশোধিত তেলের দাম না কমছে, ততদিন দেশে পেট্রোল-ডিজেলের মূল্য বৃদ্ধি অব্যহত থাকবে বলেও জানা যাচ্ছে।

২৭ ফেব্রুয়ারি শেষ দাম বেড়েছিল পেট্রোল ও ডিজেলের। তারপর থেকে দাম এক জায়গায় স্থির ছিল। উল্টে মার্চ ও এপ্রিলে বার চারেক জ্বালানির দাম কমে। ১৫ এপ্রিল পেট্রোলের দাম ১৬ পয়সা ও ডিজেলে ১৪ পয়সা দাম কমেছিল। কিন্তু এবার তা বাড়ল অনেকটাই।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.