মুম্বই: সমাজকর্মী নরেন্দ্র দাভোলকর হত্যা মামলায় বিজেপির ছায়া সংগঠন সনাতন সংস্থানের এক সদস্য বীরেন্দ্র তাওদে গ্রেফতারের পরই মহারাষ্ট্র ও গোয়াতে সরকারে থাকা বিজেপি সরকারের উপর চাপ বাড়াতে শুরু করেছে বিরোধীরা৷ সনাতন সংস্থানকে সংগঠনকে দুই রাজ্যে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব নিষিদ্ধ করার দাবি তুলল বিরোধী কংগ্রেস৷

যুক্তিবাদী নরেন্দ্র দাভোলকরকে হত্যার জন্য এক দিন আগেই পেশায় ডাক্তার বীরেন্দ্র তাওদেকে গ্রেফতার করেছিল কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা এনআইএ৷ এরপরই মহারাষ্ট্রের বিরোধী আসনে থাকা কংগ্রেসের বিরোধী দলনেতা তথা প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রি অশোক চাভান দাবি তুলে জানিয়েছেন যে, আগেও কংগ্রেসের পক্ষ থেকে সনাতন সংস্থানকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করার কথা বলা হয়েছিল৷ এখন আবারও সেই একই দাবি জানানো হচ্ছে৷ এমনকি অশোক চাভানের সুরেই সুর মিলিয়ে মহারাষ্ট্রের আরও এক মুখ্যমন্ত্রি পৃথ্বিরাজ চাবান জানিয়েছেন যে, কেন্দ্রের এই মুহুর্তে এই সংগঠনটিকে নিষিদ্ধ করা উচিত৷

এর আগে মহারাষ্ট্রের বর্তমান মুখ্যমন্ত্রি তথা বিজেপি নেতা দেবেন্দ্র ফড়নবিশ জানিয়েছিলেন যে, যদি সনাতন সংস্থান সংগঠনটির বিরুদ্ধে কোনও প্রকারের প্রমাণ পাওয়া যায় তবে সঙ্গে সঙ্গে য়তাদের নিষিদ্ধ করা হবে৷ ফলে আবারও এই উগ্র সংগঠনগুলি ও তাদের বিভিন্ন অসহিষ্ণু কাজকর্ম নিয়ে মহারাষ্ট্রের বিজেপি বিরোধী শিবির চাঙ্গা হয়ে উঠতে পারে বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল৷ সেক্ষেত্রে উঠে আসতে পারে সমাজকর্মী নরেন্দ্র দাভোলকরের প্রসঙ্গ, গোভিন্দ পানসারে ও এম এম কালবুর্গী হত্যার মতো ঘটনাও৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।