সাংবাদিক বৈঠকে মুকুল রায়

তিনি যা বললেন:

(ইস্তফা)

”হৃদয়ে গভীর যন্ত্রণা নিয়ে ইস্তফা দিলাম। বাধ্য হয়েই ইস্তফা দিলাম। বলেছিলাম ২৫ সেপ্টেম্বর ইস্তফা দেব, সেটাই করলাম।”

(তৃণমূল ও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়)

”নির্বাচন কমিশনের কাছে তৃণমূল কংগ্রেসের হয়ে প্রথম আবেদন করেছিলাম আমি। ১৯৯৭ সালের ১৭ ডিসেম্বর সেইমতো তৃণমূল কংগ্রেস রেজিস্ট্রেশন পায়। আমার নামেই রেজিস্ট্রেশন এসেছিল। মমতাকে কংগ্রেস বহিষ্কার করায়, তখন উনি তৃণমূলে যোগ দেন। ১৯৯৮ তে বিজেপির সঙ্গে জোট করেছিল তৃণমূল। মমতা রেলমন্ত্রী হওয়ার পর আমরা বলছিলাম বিজেপি সাম্প্রদায়িক দল নয়। ২০০৭ পর্যন্ত বিজেপির সঙ্গে ছিল তৃণমূল। মমতার নির্দেশেই আরএসএসের সঙ্গে যোগাযোগ করেছিলাম। আমরা কারও চাকর নই, আমরা দলের কর্মী।”

(ভবিষ্যৎ?)

”আমার সঙ্গে আরএসএস, বিজেপি ও অন্যান্য রাজনৈতিক দলের যোগাযোগ রয়েছে। কোন দলে যাব এখনও ঠিক করিনি। ৬ মাস আগেই দল ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। অরুণ জেটলি, কৈলাশ বিজয়বর্গী সবার সঙ্গেই আমার সম্পর্ক ভাল। তাদের সঙ্গে আলোচনাও চলছে। অধীর চৌধুরি আমার খুব ভাল বন্ধু, সীতারাম ইয়েচুরির সঙ্গেও ভাল সম্পর্ক।”

(সারদা-নারদ)

”সারদা-নারদ ইস্যুতে দল জড়িত নয়। অভিযুক্তরা ব্যক্তিগতভাবে জড়িত। সিবিআই আমাকে আট ঘণ্টা জেরা করে, যা জানার জেনে নিয়েছে।”

(পার্থ চট্টোপাধ্যায়)

”পার্থ বাচ্চা ছেলে। ও ইতিহাসটাই জানে না।  ওর সম্পর্কে কি বলব! ও আগেও এরকম মন্তব্য করেছে। ”