ওয়াশিংটন: মার্কিনি সেনার হামলায় হত বিশ্বের কুখ্যাত সন্ত্রাসবাদী তথা আইএস প্রধান আল বাগদাদি। বড় ঘোষণা করলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প৷ মার্কিনী সেনার আক্রমনে ভয় পেয়ে আত্মঘাতী হন আইএস প্রধান।

বাগদাদি বহু নিরীহ মানুষের মৃত্যুর কারণ। আর তাকেই খতম করা হয়েছে বলে জানান ট্রাম্প। হোয়াইট হাউস থেকে এভাবেই তিনি সকলকে জানালেন এই খবরটি। “আর কখনও কোনও মানুষকে সে অত্যাচার করতে পারবে না। কখনও কেউ ওই মানুষটার জন্য কষ্ট পাবে না। ওকে কুকুরের মত মারা হয়েছে। একজন ভীতুর মত মারা গিয়েছে বাগদাদি।” সকলের উদ্দেশ্যে জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। ঘটনা চলাকালীন হোয়াইট হাউস থেকে তিনি পুরোটাই দেখেছেন বলেও জানিয়েছেন।

২০১৪ সালে ইরাক ও সিরিয়ার খলিফা হয়ে ওঠে বাগদাদি। আর তারপর থেকে ক্রমেই বিশ্বের অন্যতম নৃশংস দল হিসেবে বাকি জঙ্গি দলগুলিকে ফেলে উপরের সারিতে উঠে এসেছিল আইএস। মার্কিন সেনাবাহিনী আইএসের ঘাঁটি ধ্বংস করলেও ধরা যায়নি বাগদাদিকে। শুধুমাত্র মধ্য এশিয়াই নয়। অন্যান্য জায়গাতেও তারা হামলা করে নিজেদের ক্ষমতা প্রদর্শন করে। বিগত কয়েক বছর ধরে মার্কিন সেনাদের অতি সক্রিয়তার ফলে কোণঠাসা হয়ে পড়ছিল বাগদাদি।

ট্রাম্প বলেন, চিৎকার করে কাঁদতে কাঁদতে বাগদাদি একটি সুড়ঙ্গে ঢুকে পড়েছিল। আমেরিকার সেনাবাহিনীর আক্রমণে বাগদাদির কিছু করার ছিল না বলেও জানিয়েছেন। এই কাজে সাহায্য করার জন্য ট্রাম্প রাশিয়া, তুরস্ক, সিরিয়া এবং ইরাক সরকারকেও ধন্যবাদ জানিয়েছেন। বিশেষভাবে সিরিয়ান কুর্দদের ধন্যবাদ জানিয়েছেন তিনি।

জানা গিয়েছে, আইএসের ডেরাতে হামলার নির্দেশ দিয়েছিলেন স্বয়ং মার্কিন প্রেসিডেন্ট। ডিফেন্স সেক্রেটারি সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, কয়েকদিন আগে থেকেই এই হামলার প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছিল আর সেইমত সেনারাও প্রস্তুতি নিয়েছিল যাতে কোনভাবেই পরিকল্পনা বিফলে না যায়। আর তারপরে ৮ টি হেলিকপ্টারে বিশেষ এই দলটি বাগদাদির ডেরায় গিয়ে হামলা করে। ঘিরে ফেলে তার ডেরা। আর যার ফলস্বরুপ আত্মঘাতী হন বাগদাদি। তবে কোথায় এই অভিযান করা হয়েছিল তা জানা যায়নি।

ট্রাম্প জানিয়েছেন তিনি তাঁর সহযোগীদের সঙ্গে এই পুরো বিষয়টি দেখেছেন। এর আগেও অনেকবার আইএস প্রধান বাগদাদির ভুয়ো মৃত্যুর খবর রটলেও দেখা গিয়েছে বহাল তবিয়তেই রয়েছে সে। অবশেষে মার্কিন বাহিনীর হামলায় আত্মঘাতী হল এই কুখ্যাত জঙ্গি।