যুক্তরাষ্ট্রের ৪৫তম প্রেসিডেন্ট হলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প৷ এই রিপাবলিকান নেতাটি ওভাল অফিসে বসার সঙ্গে সঙ্গে অনেকগুলো নতুন ইতিহাস সৃষ্টি করলেন৷ হোয়াইট হাউজে অনেক কিছুই ‘প্রথমবারের’ মত হচ্ছে তাঁর আমলে।

প্রথমত, সবচেয়ে বয়স্ক প্রেসিডেন্ট তিনি৷ গত জুন মাসেই ৭০তম জন্মদিন পালন করেছেন নয়া প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প।
এর আগে রোনাল্ড রিগ্যানের ছিলেন সবচেয়ে বয়স্ক প্রেসিডেন্ট৷ ১৯৮১ সালে  যখন তিনি ক্ষমতায় এলেন তথন তিনি ৬৯৷
দেখা গিয়েছে এর আগে হওয়া  ৪৪ জন প্রেসিডেন্টর বয়সের গড় ছিল ৫৫।সব থেকে কম বয়সে প্রেসিডেন্ট হয়েছিলেন ৪৩  বছরের থিওডোর রুজভেল্ট।

দ্বিতীয়ত, প্রথম বিলিওনেয়ার প্রেসিডেন্ট তিনি৷ ফোর্বসের হিসেবে ট্রাম্পের ব্যক্তিগত সম্পদের পরিমাণ তিনশো ৭০ কোটি ডলারের বেশী। প্রেসিডেন্ট জর্জ ওয়াশিংটনের সম্পদের পরিমাণ ছিল ৫০ কোটি ডলারের মত।শত-কোটিপতি বলেই হয়তো ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যের গভর্নর আর্নল্ড শোয়ার্জনেগারের পদাঙ্ক অনুসরণ করে মি. ট্রাম্প মাত্র ১ ডলার মাসিক বেতন নিচ্ছেন।

তৃতীয়ত, শুধু তিনি ধনী নন তাঁর গোটা মন্ত্রীসভাই ধনী: দেখা গেল ট্রাম্প যখন একে একে তার মন্ত্রীসভার সদস্যদের নাম ঘোষণা করতে শুরু করেন তখন তাদের ‘মোটা মানিব্যাগ’ দেখে অনেকেই চমকে যাচ্ছেন। মনে করা হচ্ছে আধুনিক আমেরিকার ইতিহাসে এটাই হতে যাচ্ছে সবচাইতে সম্পদশালী প্রশাসন। তাঁর একার সম্পদই ২০০১ সালে প্রেসিডেন্ট জর্জ ডাব্লিউ বুশের পুরো মন্ত্রীসভার সদস্যদের মোট সম্পদের চাইতেও দশ গুন বেশী। তখন প্রেসিডেন্ট বুশের মন্ত্রীসভায় ‘কোটিপতিদের সমাবেশ’ বলে হয়েছে বলে সংবাদমাধ্যমে বর্ণনা করা হয়েছিল৷ ট্রাম্পের মন্ত্রীসভায় যারা থাকবেন তাদের সকলের মিলিত সম্পদের পরিমাণ সাড়ে তিন হাজার কোটি ডলারের বেশী হবে।

চতুর্থত, রাজনৈতিক অভিজ্ঞতার অভাবও নজরে আসছে সকলের৷ আমেরিকায় গত ৬০ বছরের ইতিহাসে এমন একজন প্রেসিডেন্টও নির্বাচিত হননি যাদের অন্তত রাজ্য গভর্নর কিংবা কংগ্রেস সদস্য হিসেবে কোনও রকম অভিজ্ঞতা নেই। সেদিক থেকে ট্রাম্পের এই জয় খুবই গুরুত্বপূর্ণ, কারণ এর আগে তার এ ধরণের কোন অভিজ্ঞতা নেই। এর আগে সর্বশেষ অভিজ্ঞতাবিহীন প্রেসিডেন্ট ছিলেন ডোয়াইট আইসেনআওয়ার।তিনি ১৯৫৩ সালে নির্বাচিত হবার আগে ছিলেন দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে অ্যালাইড ফোর্সের সুপ্রিম কমান্ডার। ১৯২৯ থেকে ১৯৩৩ পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করা হার্বার্ট হুভার ছিলেন একজন প্রকৌশলী এবং মানবতাবাদী। এদিকে মি. ট্রাম্পের বক্তব্য, ওয়াশিংটনের প্রতিষ্ঠান সমূহের সঙ্গে তার আগে কোনও যোগাযোগ না থাকাটাই ‘সম্পদ’, এটি আদৌ ‘ত্রুটি’ নয়।

পঞ্চমত, ক্ষমতাধর সন্তান৷ জামাই জ্যারেড কুশনারকে মি. ট্রাম্প তার সিনিয়র উপদেষ্টা বলে ঘোষণা করার পর বিরোধীরা স্বজনপোষণের আওয়াজ তোলে।তবে এই মনোনয়নের ফলে ৩৬ বছর বয়সী মি. কুশনার মার্কিন ইতিহাসের সবচাইতে ক্ষমতাধর জামাইয়ে পরিণত হয়েছেন। তবে এর আগে প্রেসিডেন্ট উড্রো উইলসনের মেয়ে ইলিয়ানরকে বিয়ে করেছিলেন তারই ট্রেজারি মন্ত্রী উইলিয়াম গিবস ম্যাকাডু। তবে তা ঘটেছিল ১৯৬৭ সালে যখন যুক্তরাষ্ট্র স্বজনপ্রীতি-বিরোধী নীতি গ্রহণ করেনি। ম্যাকাডু প্রেসিডেন্টের মেয়েকে বিয়ে করার আগে থেকেই তার মন্ত্রী ছিলেন। এদিকে মি. ট্রাম্পের বড় মেয়ে এবং মি. কুশনারের স্ত্রী ইভাঙ্কাকেও বলা হচ্ছে আমেরিকার ইতিহাসের সবচাইতে প্রভাবশালী ‘ফার্স্ট ডটার’ হিসেবে।

ষষ্ঠত, নেই কোনও পোষা প্রাণী ৷ ডোনাল্ড ট্রাম্পের এত ধন সম্পদ থাকলেও তার কোন পোষা প্রাণী নেই। এরফলে গত এক শতাব্দীরও বেশী সময়ের ইতিহাসে মি. ট্রাম্পই হতে যাচ্ছেন প্রথম প্রেসিডেন্ট যার জন্য কোনও হোয়াইট হাউজে কোনও পোষা প্রাণী থাকবে না। প্রেসিডেনশিয়ল পেট মিউজিয়াম জানাচ্ছে, প্রায় প্রত্যেক প্রেসিডেন্টেরই পোষা প্রাণী ছিল।
তারমধ্যে আবার জন এফ কেনেডির পোষা প্রাণীর সংগ্রহ একেবারে চিড়িয়াখানার সঙ্গে তুলনীয় ছিল৷ বারাক ওবামার পোষা কুকুর বো।

সপ্তমত, মুক্ত বাণিজ্যের বিরোধীতা করা৷ ট্রাম্পের বক্তব্য মুক্ত বাণিজ্যের কারণেই আমেরিকানরা কাজ হারিয়েছে৷ তার এই শ্লোগান ভোটারদের মধ্যে অনেকটা জাদুমন্ত্রের মত কাজ করেছে বলে মনে করেন অনেকে। এর আগে ১৯৩০ এর দশকে রিপাবলিকান হার্বার্ট হুবার এমন অবস্থান নিয়েছিলেন। চীনা পণ্য আটকাতে  তিনি ১২% পর্যন্ত আমদানি শুল্ক আরোপ করতে প্রস্তুত আছেন বলে জানিয়েছেন৷

অষ্টমত, নতুন ফার্স্ট লেডি স্লোভেনিয়া থেকে আসা সাবেক মডেল মেলানিয়া ট্রাম্পও বেশ কিছু বিশেষত্বের অধিকারী৷ তার আগে আমেরিকায় জন্ম না নেয়া একজন মহিলাই ‘ফ্লোটাস’ (ফার্স্ট লেডি অব দ্য ইউনাইটেড স্টেটস) হতে পেরেছেন, তিনি ষষ্ঠ মার্কিন প্রেসিডেন্ট জন কুইন্সি অ্যাডামসের স্ত্রী লুইসা অ্যাডামস। লন্ডনে জন্ম নেয়া মিসেস অ্যাডামস ফ্লোটাস ছিলেন ১৮২৫ থেকে ১৮২৯ সাল পর্যন্ত। তাছাড়া প্রেসিডেন্টে তৃতীয় স্ত্রী হিসেবে প্রথম হোয়াইট হাউজের বাসিন্দা হতে যাচ্ছেন মেলানিয়া ট্রাম্প। এর আগে একজন প্রেসিডেন্টেরই প্রথম স্ত্রীর সাথে ডিভোর্স হয়েছিল, তিনি রোনাল্ড রিগ্যান।

তিনি অভিনেত্রী স্ত্রী জেন ওয়াইম্যানের থেকে আলাদা হয়েছিলেন প্রেসিডেন্ট হবার বহু আগে। আর মডেল হওয়ার দরুন
তিনিই প্রথম কোন প্রেসিডেন্টের স্ত্রী যার নিরাভরণ শরীরের ছবি ছাপা হয়েছে পত্রিকায়।আর প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প অবশ্য ১৯৯০ সালে নিজেও একবার প্লেবয় ম্যাগাজিনের প্রচ্ছদ হয়েছিলেন।

#Donald Trump assumed office on Saturday as the 45th president of the United States of America. This article provides you some 8 facts about Trump after taking office.

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও