কলকাতা: বুধবার থেকে দিঘায় বসছে দু’দিনের বিজনেস কনক্লেভ। সেখানে শিল্পমহলের কাছে তুলে ধরা হবে রাজ্যে ব্যবসার সুযোগ৷ সম্প্রতি দfঘার সমুদ্র সৈকতে তৈরি হওয়া কনভেনশন সেন্টারে আয়োজন করা হচ্ছে এই বিজনেস কনক্লেভের। ১৭-১৮টি দেশের রাষ্ট্রদূত, শিল্পোদ্যোগী, বণিকসভার প্রতিনিধিদের হাজির থাকার কথা। তাঁদের সামনে এ রাজ্যে শিল্পে বিনিয়োগের অঙ্ক এবং গত আট বছরে এ রাজ্যের আর্থিক অবস্থা কেমন পরিবর্তন হয়েছে তা জানানো হবে।

এই কনভেনশন সেন্টারে থাকছে ৯৭০ জন বসার জায়গা৷ ওই কনভেনশন সেন্টারের লাগোয়া হোটেলও রয়েছে। ওই কনভেনশন সেন্টার এবং হোটেলটিকে বিশ্বের দরবারে তুলে ধরতে আগ্রহী মমতার সরকার। যাতে রাজ্যের পর্যটনশিল্পের আরও বিস্তার হয়।

এই বিজনেস কনক্লেভে আসা অতিথিদের দিঘায় নিয়ে যাওয়ার জন্য গাড়ি, ভলভো বাস এবং ট্রেনের বিশেষ ব্যবস্থা করা হয়েছে। তাছাড়া হেলিপ্যাডের ব্যবস্থা থাকছে। ১১ ডিসেম্বর, বুধবার দুপুর আড়াইটে থেকে এর অধিবেশন শুরু হবে। অনুষ্ঠান উদ্বোধন করবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷ রাজ্যে প্রশাসনের বিশিষ্ট ব্যক্তিদের পাশাপাশি থাকবেন বিশিষ্ট শিল্পপতি ও শিল্পসংস্থার প্রতিনিধিরা৷ ওইদিন বিকেলপাঁচটায় থাকছে সঙ্গীতানুষ্ঠান।

পরের দিন, বৃহস্পতিবার সকাল থেকে বিভিন্ন শিল্পসংস্থাগুলির প্রতিনিধিরা অংশ নেবেন বি টু বি, জি টু বি-তে। পরিকাঠামো, আইটি, পর্যটন, নগরায়ন ইত্যাদি ক্ষেত্র নিয়ে বিজনেস কনক্লেভে আলোচনা হবে। তাছাড়া বেশ কয়েকটি মউ-ও স্বাক্ষরিত হবে বলে আশা করা হচ্ছে। ওইদিন বেলা দু’টোর সময় সমাপ্তি অনুষ্ঠান।

এদিকে কয়েকদিন আগে খড়গপুরে উপনির্বাচনে দলীয় প্রার্থী প্রদীপ সরকার জয়ী হওয়ায় সেখানকার মানুষকে কৃতজ্ঞতা জানাতে সোমবার সেখানে যাচ্ছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কারণ এতদিন ওই কেন্দ্রে তৃণমূলের কখনও কোনও বিধায়ক ছিল না ৷  সেখানে সভা করার পর মমতা চলে যাবেন দিঘায়। কারণ পরের দিন মঙ্গলবার তিনি নিজেই সরজমিনে বিজনেস কনক্লেভের প্রস্তুতি লক্ষ্য করবেন এবং সেজন্য প্রয়োজনীয় বৈঠক করবেন।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও