লন্ডন: ইংলিশ প্রিমিয়র লিগকেই ইউরোপ তথা বিশ্বের সেরা ফুটবল লিগ বলে মনে করেন চেলসি কোচ মাউরিজিও সারি৷ তাঁর স্পষ্ট মত, প্রিমিয়র লিগের মান বিশ্বের বাকি লিগগুলির তুলনায় অতি উচ্চ৷

আরও পড়ুন: ৬ মাসের শাস্তি বেকহ্যামের

বৃহস্পতিবার রাতে ইউরোপীয়ান ফুটবলের ইতিহাসে এক অনন্য নজির গড়ে ইংল্যান্ড তথা প্রিমিয়র লিগ৷ এই প্রথমবার একই মরশুমে দু’টি ইউরোপীয়ান চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে অল-ইংল্যান্ড লড়াই৷ লিভারপুল ও টটেনহ্যাম আগেই চ্যাম্পিয়ন্স লিগের খেতাবি লড়াইয়ে জায়গা করে নিয়েছে৷ এবার ইউরোপা লিগের ফাইনালের টিকিট নিশ্চিত করে চেলসি ও আর্সেনাল৷ এর আগে কোনও একটি দেশের চারটি দল একই মরশুমে দু’টি ইউরোপীয়ান লিগের ফাইনালে ওঠেনি৷

আরও পড়ুন: চ্যাম্পিয়ন্স লিগের পর ইউরোপা লিগেও অল-ইংল্যান্ড ফাইনাল

ঘরের মাঠে পেনাল্টি শুট-আউটে ফ্র্যাঙ্কফুর্টকে হারিয়ে ওঠার পর চেলসি কোচ সারি বলেন, ‘প্রিমিয়র লিগের মান অতি উচ্চ৷ এখানে দলগুলির মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতাও হয় উচ্চ মানের৷ লিগ কাপের ফাইনালে উঠতেই আমাদের খেলতে হয় লিভারপুল, টটেনহ্যামের মতো দলের বিরুদ্ধে যারা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালে উঠেছে৷ ম্যাঞ্চেস্টার সিটির মতো ইউরোপের অনোতম সেরা দলের বিরুদ্ধেও আমাদের লড়াই করতে হয়৷ সুতরাং বোঝাই যাচ্ছে ইংল্যান্ডে কোন মানের ফুটবল খেলা হয়৷ এই মুহূর্তে প্রিমিয়র লিগ ইউরোপ তথা বিশ্বের সেরা ফুটবল লিগ৷’

আরও পড়ুন: লুকাসের হ্যাটট্রিকে প্রথমবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালে টটেনহ্যাম

যদিও সারি মনে করেন যে, মরশুমের এই সময়ে ইংল্যান্ডের দলগুলির পক্ষে পর পর ম্যাচ খেলা কঠিন৷ কারণ শারীরিকভাবে বিধ্বস্ত থাকে ফুটবলাররা৷ তাঁর কথায়, ‘ইংল্যান্ডের দলগুলির পক্ষে মরশুমের শেষ মাসে সেরা ছন্দে থাকা কঠিন৷ অন্য দেশের দলগুলির তুলনায় ইংল্যান্ডে খেলা ফুটবলাররা শারীরিকভাবে ক্লান্ত থাকে৷ কেননা, তাদের অনেক বেশি ম্যাচ খেলতে হয়৷ আমরা এই নিয়ে মরশুমে ৬১টি ম্যাচ খেলে ফেললাম৷ সেখানে ইতালির দলগুলি ৫০-৫২টা ম্যাচ খেলেছে৷ এই দশটা ম্যাটের পার্থক্য অনেক৷’