লন্ডন: ভারতে যেসমস্ত বিদেশি ক্রিকেটারের জনপ্রিয়তা খুব বেশি তাঁদের মধ্যে অন্যতম হলেন ইংল্যান্ডের কিংবদন্তি ক্রিকেটার কেভিন পিটারসেন (Kevin Pietersen)। ক্রিকেট সম্পর্কিত নানা কাজের জন্য কিছু সময় অন্তর অন্তরই কেভিন ভারতে আসেন। আইপিএল(IPL) চলাকালীনও তিনি ভারতেই ছিলেন ধারাভাষ্যের কাজের জন্য। তবে গত সপ্তাহে দেশে বাড়তে থাকা কোভিড সংক্রমণ ও বিভিন্ন দলের প্লেয়ার ও সাপোর্ট স্টাফেরা কোভিড আক্রান্ত হওয়ার পর ভারতীয় বোর্ড অনির্দিষ্টকালের জন্য চতুর্দশ সংস্করণের আইপিএল স্থগিত করে দেয়। তারপরেই ইংল্যান্ড থেকে আসা বাকি প্লেয়ার, সাপোর্ট স্টাফ, ধারাভাষ্যকারদের সঙ্গে দেশে ফিরে গিয়েছেন কেভিনও। দেশে ফেরার পর আজ সকালে তিনি ভারতীয়দের সুরক্ষিত থাকার আবেদন জানিয়ে হিন্দিতে একটি টুইট করেছেন।

ভারতে কোভিড সংক্রমণের বিষয়টি শুধু দেশেই নয়, বিদেশেও আলোচনার বিষয় হয়ে উঠেছে। বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন জগতের বিখ্যাত নানা ব্যক্তিরা ভারতের উদ্বেগজনক পরিস্থিতি দ্রুত ঠিক হয়ে যাওয়ার কামনা করে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেছেন। তেমনই ক্রীড়া জগতের এক কিংবদন্তি ব্যক্তিত্ব কেভিনও ভারত ও ভারতবাসীদের প্রতি নিজের ভালোবাসার পরিচয় দিয়ে একটি টুইট করেন।

কেভিন নিজের টুইটারে হিন্দিতে লিখেছেন, ‘আমি হয়তো ভারত ছেড়ে দিয়েছি। তবে যেই দেশ আমায় এত বছর ধরে ভালোবাসা ও স্নেহ দিয়েছে সেই ভারতকে নিয়ে কিন্তু এখনও আমি ভাবছি। দয়া করে ওখানকার সবাই সুরক্ষিত থাকবেন। এই সময়টাও কেটে যাবে, কিন্তু সবাইকে সচেতন থাকতে হবে’।

আইপিএল চলাকালীনই ভারতে কোভিড সংক্রমণের সংখ্যা প্রাত্যহিক বেশ বৃদ্ধি পাচ্ছিল। সেই কারণে অ্যান্ড্রু টাই (Andrew Tye), অ্যাডাম জ্যাম্পা(Adam Zampa), কেন রিচার্ডসনের(Kane Richardson) মতো বেশ কিছু বিদেশি ক্রিকেটার আইপিএল স্থগিত হওয়ার আগেই টুর্নামেন্ট মাঝ পথে ছেড়ে নিজের দেশে ফিরে গিয়েছিলেন। তারপর কঠোর জৈব সুরক্ষা বলয় ভেদ করে বিভিন্ন দলের একের পর এক ক্রিকেটার, সাপোর্ট স্টাফ কোভিড আক্রান্ত হলে ভারতীয় বোর্ড সবার সুরক্ষার কথা ভেবে টুর্নামেন্ট স্থগিত করে দেয়।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.