চেন্নাই: অরবিটারে দেখা গিয়েছে চন্দ্রযানের ল্যান্ডারের ছবি। কিন্তু এখনও পর্যন্ত যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। শুক্রবার রাত থেকেই কার্যত চন্দ্রযানের সাফল্যের জন্য প্রার্থনা করে চলেছে দেশবাসী। এবার রীতিমত আচার-নিষ্ঠা মেনে পুজো শুরু হয়েছে ল্যান্ডার বিক্রমের জন্য। মিরাকলের আশায় চাঁদের দেবতাকে পুজো করছেন ভক্তরা।

যাতে দ্রুত বিক্রমের সঙ্গে যোগাযোগ করাস ম্ভব হয়, তার জন্য চাঁদের দেবতা চন্দ্রের মন্দিরে শুরু হয়েছে পুজো। প্রার্থনার প্রথম ধাপ হল ‘অভিষেকম’। সেই পুজোয় লাগে মধু, চন্দন ইত্যাদি। পুজো শেষে সবাই একসঙ্গে খাওয়া-দাওয়া করে।

নবগ্রহের ন’টি মন্দিরের মধ্যে আন্যতম হল এই শ্রী কৈলাসানাথর মন্দির। এখানে চন্দ্র দেবতার একটি ছোট মন্দির রয়েছে। তাতেই চলছে পুজো। মন্দিরের ম্যানেজার বলেন, যদি চন্দ্রের দেবতা কোনোভাবে যোগাযোগ করিয়ে দিতে পারেন, তার জন্যই চলছে পূজা।

পুজোয় অংশ নিয়েছেন বহু ভক্ত। প্রথম চন্দ্রযানের আগেও এইভাবে যজ্ঞ হয়েছিল এই মন্দিরে।

এদিকে, মঙ্গলবার ইসরোর তরফে চন্দ্রযানের সেই ল্যান্ডারের অবস্থান নিয়ে বিবৃতি দিয়েছে ট্যুইটারে।

এদিন ইসরোর অফিশিয়াল ট্যুইটার হ্যান্ডেলে ট্যুইট করা হয়েছে, ‘চন্দ্রায়ন ২-এর অরবিটার বিক্রম ল্যান্ডারের অবস্থান খুঁজে পেয়েছে। তবে এখনও পর্যন্ত কোনও যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।’ ল্যান্ডারের সঙ্গে যোগাযোগ করার সবরকম চেষ্টা চলছে বলেও জানিয়েছে ইসরো।

শুক্রবার রাতে চাঁদে পৌঁছনোর কথা ছিল ল্যান্ডার বিক্রমের। কিন্তু কয়েক মিনিট আগেই সেই ল্যান্ডারের সঙ্গে ইসরোর যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। এরপর থেকেই উৎকন্ঠায় কাটাচ্ছিলেন ইসরোর বিজ্ঞানীরা। অবশেষে রবিবার সকালে সেই বিক্রমের ছবি ধরা পড়েছে বলে জানান ইসরোর চেয়ারমান কে সিবান। জানান, ল্যান্ডার বিক্রমের একটি থার্মাল ইমেজ ধরা পড়েছে অরবিটারে। অরবিটারটি চাঁদের চারপাশে কক্ষপথে ঘুরছে। তাতেই ধরা পড়েছে ছবি। তিনি জানিয়েছেন, যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হচ্ছেল খুব তাড়াতাড়ি যোগাযোগ করা সম্ভব হবে।