তিমিরকান্তি পতি, বাঁকুড়া: গরিব খেটে খাওয়া পরিবারের ২৮ জন শিশুর প্রাক প্রাথমিক শিক্ষার দায়িত্ব নিল ছাত্র ছাত্রীদের সংগঠন ‘প্রয়াস’। সোমবার বাঁকুড়ার ইন্দাসের আকুই গ্রামে এক পরিত্যক্ত রাইস মিলে অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে এই কাজের সূচনা হয়। প্রয়াসের সদস্যরা ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন ইন্দাসের বিডিও মানসী ভদ্র চক্রবর্তী, ওসি বিদ্যুৎ পাল, আকুই-১ গ্রাম পঞ্চায়েতের উপ প্রধান দীনবন্ধু নন্দী, শিক্ষক প্রসেনজিৎ সরকার, সমাজসেবী পুলক পাঁজা, সুখেন্দু ঘোষাল প্রমুখ।

প্রয়াসের সদস্যরা জানিয়েছেন, তারা খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন, আকুই ভৈরবতলা এলাকায় কোন আইসিডিএস কেন্দ্র নেই। এখানকার ছোটো ছোটো শিশুরা বাধ্য হয়েই পাশের জেলা বর্ধমানের বোঁয়াইচণ্ডীর এক আইসিডিএস কেন্দ্রে পড়তে যায়। অনেকের পক্ষে সেটাও সম্ভব হয় না। কারণ এই সব শিশুদের অভিভাবকরা অধিকাংশই স্থানীয় রাইস মিলগুলিতে কিংবা অন্যের জমিতে চাষের কাজ করে সংসার চালান। ফলে ওই সব পরিবারের অধিকাংশ শিশুই শিক্ষার আলো থেকে বঞ্চিত।

সেকারণেই প্রথাগত শিক্ষার পাশাপাশি অঙ্কন শিক্ষার ব্যবস্থাও করা হয়েছে। এখানে এলাকার সমস্ত শিশু শিক্ষার্থী সম্পূর্ণ বিনামূল্যে পড়াশোনা করার সুযোগ পাবে বলে উদ্যোক্তাদের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। একেবারে বাড়ির কাছেই ছেলে মেয়েরা পড়াশোনা করার সুযোগ পাবে জেনে খুশি বাবা মায়েরা। খুশি শিশু শিক্ষার্থীরাও। রাজু কিস্কু, বিজু কিস্কুরা বলে, খুব ভালো লাগছে। এখন থেকে রোজ সকালে পায়ে হেঁটে গ্রাম থেকে অনেক দূরে বোঁয়াইচণ্ডীতে পড়তে যেতে হবে না। বাড়ির কাছের স্কুলেই পড়াশোনা করার সুযোগ তৈরি হল।

এদিনের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ইন্দাস থানার ওসি বিদ্যুৎ পালের পক্ষ থেকে সমস্ত ছাত্র ছাত্রীকে আঁকার সরঞ্জাম তুলে দেওয়া হয়। একই সঙ্গে এই সব ছাত্র ছাত্রীদের আধুনিক শিক্ষায় শিক্ষিত করতে পুলিশের পক্ষ থেকে কম্পিউটার উপহার দেওয়ার ব্যবস্থা করা হবে বলে জানানো হয়েছে। বিডিও মানসী ভদ্র চক্রবর্তী এই উদ্যোগের ভূয়সী প্রশংসা করে বলেন, এই সংস্থাটি সারা বছর ধরেই নানান রকমের সামাজিক কাজকর্ম করে থাকে। আজকের অনুষ্ঠানটি একেবারে ভিন্ন ধরণের।

দিন আনে দিন খায় পরিবারের ২৮ জন শিশুর পড়াশোনার দায়িত্ব প্রয়াসের সদস্যরা যেভাবে নিজেদের কাঁধে তুলে নিচ্ছেন তা যথেষ্ট প্রশংসার দাবি রাখে। একই সঙ্গে বিডিও জানান, আকুই গ্রাম পঞ্চায়েত কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা হয়েছে৷ এই শিশুগুলিকে স্থানীয় আইসিডিএস কেন্দ্র থেকে মিড ডে মিল যাতে দেওয়া যায় তার ব্যবস্থা করার জন্য। একই সঙ্গে এই এলাকায় নতুন একটি শিশু শিক্ষা কেন্দ্র যাতে তৈরি করা যায় তার উদ্যোগ তিনি নেবেন বলেও এদিন ঘোষণা করেন।