কলকাতা: সাংসদ তথা হাওড়ার তৃণমূল প্রার্থী প্রাক্তন ফুটবলার প্রসূন বন্দোপাধ্যায়ের ভোটপ্রচারে ব্যবহার করা হয়েছে মোহনবাগান জার্সি। সোমবার এই সংক্রান্ত ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়তেই বিতর্কের ঝড় ওঠে বিভিন্ন মহলে। মাতৃসম মোহনবাগান ক্লাবের জার্সিকে এভাবে ভোটপ্রচারের হাতিয়ার বানানোয় দিকপাল ফুটবলারকে কাঠগড়ায় তোলেন অনেকে। বিভিন্ন মহল থেকে ভেসে আসতে নিন্দা।

সোমবার রাতের দিকে আগুনে ঘৃতাহুতির মতই ঘটনাটিকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি পোস্ট করেন কুনাল ঘোষ। তৃণমূল কংগ্রেসের পুরনো দিনের পরিবর্তন আন্দোলনের একজন সক্রিয় কর্মী এবং প্রাক্তন সাংসদ হিসেবে রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত হলেও এভাবে শতাব্দীপ্রাচীন ক্লাবের গরিমাকে একত্রিত করার ঘটনার নিন্দা করেন তিনি। তাঁর পোস্টে তৃণমূলের প্রাক্তন রাজ্যসভার সাংসদ কুনাল বাবু লেখেন, ‘খবর যদি সত্যি হয়, আমি ভোটের রাজনীতিতে এইভাবে মোহনবাগান জার্সি অপব্যবহারের তীব্র নিন্দা ও বিরোধীতা করছি।’

আরও একধাপ এগিয়ে এরপর কুনাল ঘোষ পোস্টে লেখেন, ‘মোহনবাগান এক অন্য মাত্রার আবেগ আর গর্ব। সেখানে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সমর্থক থাকতেই পারেন। কিন্তু দলের ভোটপ্রচারে জার্সির এমন ব্যবহার সংশ্লিষ্ট প্রার্থীর দেউলিয়াপনা প্রকাশ করে।’ ফেসবুক পোস্টে ঘটনার তীব্র বিরোধীতা ও নিন্দা করে মোহনবাগান ক্লাবের তরফে প্রসূন বন্দোপাধ্যায়কে শোকজ ও সতর্ক করার অনুরোধ করেন তিনি।

পরে এবিষয়ে জিজ্ঞেস করা হলে কুনাল ঘোষের ফেসবুক পোস্টে বিন্দুমাত্র গুরুত্ব দিতে চাননি তিনি। কলকাতা২৪x৭ কে প্রসূন বন্দোপাধ্যায়কে জানান, ভোটপ্রচারে তিনি ভীষণ ব্যস্ত। সামান্য এই ঘটনায় তিনি মাথা ঘামাতে চান না। পাশাপাশি প্রসূনবাবু আরও জানান, মোহনবাগান তাঁর রন্ধ্রে। কিন্তু তাঁর অনুপস্থিতিতে ভোটপ্রচারে কেউ মোহনবাগান জার্সি ব্যবহার করে থাকলে তার দায়ভার তিনি গ্রহণ করবেন না। কুণাল ঘোষের অভিযোগ পুরোপুরি নস্যাৎ করে তাঁর বিরুদ্ধে এমন অভিযোগকে ভিত্তিহীন দাবি করেন প্রাক্তন ফুটবলার।

এরপর অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে প্রসূনবাবুর আপ্তসহায়ক জানান, ‘গেঞ্জিতে সবুজ-মেরুন রঙ থাকলেই তা মোহনবাগানের জার্সি হতে পারে না। মোহনবাগানের জার্সি হতে গেলে প্রথমেই তাতে মোহনবাগানের লোগো থাকা জরুরি।’ কিন্তু ভোটপ্রচারে ব্যবহার হওয়া সবুজ-মেরুন জার্সিতে মোহনবাগান লোগো দেখা যায়নি। অর্থাৎ কোনওভাবেই সেগুলি মোহনবাগান জার্সি নয় বলে দাবি করেন তিনি। পাশাপাশি কুনাল ঘোষের ফেসবুক পোস্টকে কটাক্ষ করে তিনি বলেন, ‘বিতর্কিত মন্তব্য করে প্রচারে থাকতেই কুনাল বাবু এসব করেছেন।’