স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: ২০২০ সালে রাজনীতি-অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিতে পারেন এরকম ২০ জন প্রভাবশালী ব্যক্তিত্বদের নামের তালিকা প্রকাশ করল মার্কিন ম্যাগাজিন ফোর্বস । সেখানে স্থান পেয়েছেন বেশ কয়কজন ভারতীয়। তবে এই তালিকায় সবচেয়ে আলোচিত ব্যক্তিত্ব প্রশান্ত কিশোর, মহুয়া মৈত্র ও কানাইয়া কুমার।

এছাড়াও, এই তালিকায় রয়েছেন শ্রীলঙ্কার রাষ্ট্রপতি, গোতাবায়া রাজাপক্ষে, সৌদি আরবের যুবরাজ মহম্মদ বিন সলমন, নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আর্ডেন, পরিবেশকর্মী গ্রেটা থুনবার্গ, এঁরা সকলেই ‘ফোর্বস’ ম্যাগাজিনে প্রকাশিত ‘ওয়ার্ল্ড টপ টোয়েন্টি ফিউচার পাওয়ারফুল পিপল’-এর তালিকায় রয়েছেন। সম্ভাবনাময় ব্যক্তিত্ব হিসেবে নিজেদের নাম তুলেছেন ফিনল্যান্ডের নবনির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী সানা মেরিন এবং ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন।

তবে এদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি চর্চার মধ্যে রয়েছেন প্রশান্ত কিশোর৷ যিনি নির্বাচনের ফলাফল এদিক থেকে ওদিকে ঘুরিয়ে দেওয়ার ক্ষমতা রাখেন। ভরাডুবি থেকে ফিরতে অনেক রাজনৈতিক দলই তাঁর সাহায্য নেন। এই মুহূর্তে তাঁর উপরই কার্যত নির্বাচনের যাবতীয় দায়িত্ব সঁপে দিয়েছে রাজ্যের শাসকদল।

বর্তমানে নীতীশ কুমারের জনতা দল ইউনাইটেডের সেকেন্ড ইন কমান্ড প্রশান্ত কিশোর। সম্প্রতি নাগরিকত্ব বিলে দল সমর্থন দেওয়ায় প্রকাশ্যে দলের বিরুদ্ধেই মত প্রকাশ করেছেন প্রশান্ত। একসময় বিজেপি, ওয়াইএসআর কংগ্রেসের ভোট কৌশলী ছিলেন। এখন কাজ করছেন তৃণমূল কংগ্রেসের হয়ে। আগামী কয়েক বছর ভারতের রাজনীতিতে তিনি যথেষ্টই প্রাসঙ্গিক থাকবেন বলে মনে করা হচ্ছে।

তালিকায় অন্যতম প্রভাবশালী ব্যক্তির নাম মহুয়া মৈত্র। ভারতীয় রাজনীতিতে তরুণ মুখ মহুয়া একসময় জেপি মর্গানের কর্মী ছিলেন৷ বিদেশে এমবিএ-র সফল চাকরি ছেড়ে ২০০৯ সালে তিনি কংগ্রেসে যোগ দেন । পরে তৃণমূলে যোগদান এবং পরে জোড়াফুলের প্রতীকে লড়াই করে করিমপুরের বিধায়ক হওয়া – এই উত্তরণ যথেষ্ট নজরকাড়া। ২০১৯এ কৃষ্ণনগরের সাংসদ হয়ে লোকসভায় প্রথম বক্তব্যেই বুঝিয়ে দিয়েছিলেন, বাকযুদ্ধে তাঁকে হারানো কঠিন। অত্যন্ত উদ্যমী, তৎপর মহুয়া মৈত্র এলাকায় সংগঠনের রাশও ধরে রাখেন অনায়াসে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিশেষ স্নেহধন্যা এই সাংসদকে বিশ্বের প্রথম কুড়ি প্রভাবশালী ব্যক্তি হিসেবে বেছে নিয়েছে ‘ফোর্বস’ ম্যাগাজিন।

এরপরেই রয়েছেন কানাইয়া কুমার৷ লোকসভা নির্বাচনে বেগুসরাই আসন থেকে গিরিরাজ সিংয়ের কাছে পরাজিত হলেও ২০১৬ সালের পর থেকে ৩২ বছরের এই যুবক ভারতীয় রাজনীতিতে একটি গুরুত্বপূর্ণ স্বর। গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল য়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে দিনরাত গালমন্দ করেন কানাহাইয়া সেই তাকেই ভারতীয় রাজানীতিতে গুরুত্ব দিল মার্কিন পত্রিকা।

তালিকায় নাম আছে ভারতীয় রাজনীতিতে নতুন তারকা দুষ্মন্ত চৌতালার। বছর পাঁচেক আগে রাজনীতিতে এসে তিনি এখন হরিয়ানার উপ মুখ্যমন্ত্রী। নতুন দল জননায়ক জনতা পার্টি গঠন করে তিনি জোর ধাক্কা দিয়েছেন কংগ্রেসকে। জাঠ ভোটব্যাঙ্কে ভাগ বসিয়ে তিনিই এখন ভারতীয়রাজনীতির নতুন তারকা।

ভারতের এই তিন রাজনীতিবিদ ছাড়াও দুনিয়ার সবচেয়ে বড় স্টিল প্রস্তুতকারী সংস্থা আর্সেলর মিত্তল-এর প্রধান আদিত্য মিত্তলেরও নাম রয়েছে এই তালিকায়৷ ভারতের বাজারে চিনের আধিপত্ত কম করতে ভারতের বাজারের প্রভাব বাড়াচ্ছে আর্সেলর। আগামী এক দশকে মিত্তললের ব্যবসা ভারতের অর্থনীতিতে প্রভাব ফেলবে বলে মনে করা হচ্ছে।

কলকাতার 'গলি বয়'-এর বিশ্ব জয়ের গল্প