মুম্বই: ভারতের পশ্চিমাঞ্চল অনূর্ধ্ব ১৬ স্কোয়াড থেকে বাদ পড়েছেন প্রণব ধানওয়ারে৷ গতবছর অনূর্ধ্ব ১৫-র একটি ক্রিকেট ম্যাচে ১০০৯ রানের ইনিংস খেলে রেকর্ড বইয়ের পাতায় নিজের নাম তুলেছিলেন এই ক্রিকেটারটি৷ সেই প্রণবকে বাদ দিয়েই পশ্চিমাঞ্চল অনূর্ধ্ব ১৬ স্কোয়াডে রাখা হয়েছে কিংবদন্তি সচিন তনয় অর্জুন তেন্ডুলকরকে৷

তাতেই গোটা দেশে ঝড় উঠে গিয়েছে৷ কেন রেকর্ডধারী প্রণবের বদলে সচিন পুত্র? অর্জুন এমন কি পারফরম্যান্স করেছেন যে প্রণবের বদলে ঢুকবেন? বিভিন্ন প্রশ্ন, সমালোচনা শুরু হয়ে গিয়েছে সর্বত্র৷ তবে সমালোচনাকে উস্কানি না দিয়ে পাল্টা সচিনের ছেলের হয়েই ব্যাট ধরলেন প্রণবের বাবা অটোরিকশাচালক প্রশান্ত ধানওয়ারে৷ এই সমালোচনার ঝড় তোলার জন্য পাল্টা সংবাদমাধ্যমকে দুষেছেন তিনি৷
সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইট ফেসবুক ও টুইটারে ঝড়ের প্রসঙ্গে প্রণবের বাবা বলেন,‘ প্রণবের বাদ পড়া নিয়ে বিতর্ক তৈরি করাটা অমূলক। পশ্চিমাঞ্চলের অনূর্ধ্ব ১৬ দল তৈরি করা হয়েছে এমসিএ অনূর্ধ্ব ১৬ দল থেকে। অর্জুন এমসিএ দলের সদস্য৷ তবে প্রণব ওই দলের সদস্য নন। তাছাড়া পারফরম্যান্সের ভিত্তিতেই দলে সুযোগ পেয়েছেন অর্জুন৷ তাই অহেতুক বিতর্ক তৈরি করা উচিত নয়৷’

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।