নয়াদিল্লি: ছেলে চাইছেন তাঁর বাবার বই প্রকাশ আপাতত স্থগিত থাক। কিন্তু মেয়েটা তা চাইছেন না, তিনি চান না তার বাবার মতামত দেওয়া বই প্রকাশে কোনো রকম বাধা আসুক। এই মর্মে দুই ভাই বোনকে টুইট করতে দেখা গিয়েছে। এই ভাই বোন হলেন প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের পুত্র অভিজিৎ মুখোপাধ্যায় এবং কন্যা শর্মিষ্ঠা মুখোপাধ্যায়। আগামী জানুয়ারি মাসে প্রণববাবুর লেখা ‘দ্য প্রেসিডেনশিয়াল ইয়ার্স’ বইটি প্রকাশ হওয়ার কথা।

আগামী জানুয়ারি মাসে গ্রন্থটি প্রকাশ হওয়ার কথা হলেও ঘটনাচক্রে কয়েকদিন আগে ওই বইয়ের কিছুটা অংশ সম্প্রতি প্রকাশ্যে এসেছে। তা ঘিরে কিছুটা বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে। জানা গিয়েছে ওই বইটিতে প্রণব মুখোপাধ্যায় জানিয়েছেন,কংগ্রেসের ভিতরে অনেকেই মনে করেছন ২০০৪ সালে তিনি প্রধানমন্ত্রী হলে ২০১৪ সালে দলের এভাবে বিপর্যয় হত না। যদিও ওই মতকে তিনি সমর্থন করেন না। তবে এটা বলেছেন রাষ্ট্রপতি হওয়ার পর থেকে রাজনৈতিক দিক থেকে দল লক্ষ্যচ্যুত হয়েছে। বইতে তিনি জানিয়েছেন,একদিকে অভ্যন্তরীণ সমস্যা মেটাতে ব্যর্থ হয়েছেন সোনিয়া অন্যদিকে সংসদ থেকে দীর্ঘদিন দূরে থেকেছেন মনমোহন।

এই পরিস্থিতিতে অভিজিৎ মুখোপাধ্যায় টুইট করে জানিয়েছেন, প্রকাশের আগে তিনি বইটি খুঁটিয়ে দেখতে চান। বইটির প্রকাশ বন্ধ রাখতে বলে প্রকাশক কে চিঠি দি দিচ্ছেন। পাশাপাশি তিনি সংবাদমাধ্যমে ওই বইয়ের কিছু অংশ প্রকাশ করাটা উদ্দেশ্যপ্রণোদিত এবং তা বন্ধ রাখার অনুরোধ জানিয়েছেন। যেহেতু তার বাবা বেঁচে নেই সেহেতু তাঁর ছেলে হিসেবে ওই বইটি প্রকাশের আগে চূড়ান্ত খসড়া দেখে নিতে চেয়েছেন।

যদিও ভাইয়ের এমন টুইট দেখে বোন শর্মিষ্ঠা মুখোপাধ্যায় ট্যুইট করে জানিয়েছেন, তার বাবার বই প্রকাশের আগে যেন অনর্থক বাধা সৃষ্টি না হয়। কারণ তিনি উল্টে অভিজিৎকে টুইট করে পালটা অনুরোধ জানিয়েছেন, এভাবে অনর্থক বাধা সৃষ্টি না করতে। তিনি জানিয়েছেন,তার বাবা অসুস্থ হওয়ার আগেই এই বইয়ের পাণ্ডুলিপি তৈরি করে ফেলেছিলেন। সেখানে তার বাবার নিজস্ব মতামত রয়েছে। সস্তা প্রচারের জন্য এক্ষেত্রে সেই মতামতকে আটকে দেওয়া উচিত নয়।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।