স্টাফ রিপোর্টার, বাঁকুড়া: পথ দুর্ঘটনায় এক ছাত্রের মৃত্যুকে কেন্দ্র করে তীব্র চাঞ্চল্য ছড়াল বাঁকুড়ার সারেঙ্গায়। এই ঘটনার প্রতিবাদ ও কর্তব্যরত সিভিক ভলান্টিয়ারদের কর্মচ্যুত করার দাবিতে পিরলগাড়ি মোড়-সারেঙ্গা রাস্তার কুলডিহা গ্রামের কাছে পথ অবরোধ করলেন প্রমীলা বাহিনী।

এই ঘটনায় আটকে পড়ে বহু যাত্রী ও পণ্যবাহী যানবাহন। বাঁকুড়ার একটা বড় অংশের সঙ্গে মেদিনীপুর ও রোড চন্দ্রকোনার যোগাযোগ ব্যবস্থা সম্পূর্ণভাবে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। ঘটনাস্থলে সারেঙ্গা থানার পুলিশ অবরোধকারীদের সঙ্গে আলোচনা শুরু হয়।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, এই বছর সারেঙ্গা মহাত্মাজী স্মৃতি বিদ্যাপীঠ থেকে উচ্চমাধ্যমিক পাশ করেছে কুলডিহা গ্রামের রাজু দুলে (১৯)৷ এদিন সকালে সাইকেলে চেপে বাজার থেকে বাড়ি ফিরছিল। সেই সময় সারেঙ্গা দিক থেকে আসা একটি বেসরকারি যাত্রীবাহী বাস স্থানীয় পেট্রোল পাম্পের কাছে তাকে পিছন থেকে ধাক্কা মারে।

স্থানীয়রা গুরুতর আহত অবস্থায় ওই ছাত্রকে সারেঙ্গা মিশন হাসপাতালে নিয়ে যায়৷ সেখানে চিকিৎসকরা তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। দুর্ঘটনার সময় ওই এলাকায় কয়েক জন সিভিক ভলান্টিয়ার কর্তব্যরত অবস্থায় ছিল৷ তারপরেও ঘাতক বাসটি পালিয়ে যায়৷ সে বিষয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। যদিও পরে পুলিশ কর্মীরা ধাওয়া করে বাসটিকে ধরে ফেলে।

সারেঙ্গা থানার পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বাঁকুড়া সম্মিলনী মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে পাঠায়৷ এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনা রয়েছে। এলাকার সমস্ত মহিলা হাজির হয়ে পথ অবরোধ করেন। বিক্ষোভ ও পথ অবরোধকারীদের পক্ষে রিমা লিসা দুলে ও কাকলী কর্মকার দুর্ঘটনার সময় কর্তব্যরত সিভিক ভলান্টিয়ারদের দিকে অভিযোগ তুলেছেন৷

তাঁরা বলেন, তারা কোন ধরণের কাজ না করে ডিউটি আওয়ারে সর্বক্ষণ মোবাইলে ব্যস্ত থাকে। দুর্ঘটনা ঘটে যাওয়ার পরেও ওই বাসটিকে আটক করতে তারা কোন উদ্যোগ নেয়নি অভিযোগ তোলেন৷ তাই তাদের দাবি অবিলম্বে ওই সময় কর্তব্যরত সিভিক ভলান্টিয়ারদের বরখাস্তের দাবি জানান তারা।