নয়াদিল্লি: নয়া কীর্তি স্থাপন করলেন প্রফুল প্যাটেল। প্রথম ভারতীয় হিসেবে ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ামক সংস্থার  কার্যকরী সমিতিতে জায়গা করে নিলেন ফেডারেশন প্রেসিডেন্ট। এশীয় দেশগুলির সর্বসম্মতিক্রমেই ফিফার কার্যকরী সমিতিতে ডাক পেলেন তিনি।

ফিফার এক্সিকিউটিভ প্যানেলে ওই পদের জন্য লড়াইয়ে ছিলেন বিভিন্ন দেশের ৮ জন প্রতিনিধি। মালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালা লামপুরে শনিবার এএফসি কংগ্রেসের মঞ্চে ভোটদান প্রক্রিয়ার মাধ্যমেই এই পদের জন্য চূড়ান্ত হন ফেডারেশন সভাপতি। এক্ষেত্রে ৪৬টি ভোটের মধ্যে ৩৮টি ভোটই গিয়েছে প্রফুল প্যাটেলের অনুকূলে।

আরও পড়ুন: দেশের নেতা নির্বাচিত হয়েও ক্ষুব্ধ রশিদ

এএফসি (এশিয়ান ফুটবল কনফেডারেশন) সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে এক্সিকিউটিভ প্যানেলে এই পদের প্রফুল প্যাটেলের সঙ্গে লড়াইয়ে ছিলেন আরও ৮ জন। তবে ২০১৭ দেশের মাটিতে সাফল্যের সঙ্গে অনুর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপ আয়োজন কিংবা ২০২০ মহিলাদের অনুর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপ দেশের মাটিতে আয়োজন করার বিষয়ে ফেডারেশন প্রেসিডেন্টের ভূমিকা অনস্বীকার্য। স্বভাবিকভাবেই বিষয়গুলি তাঁকে সাম্মানিক এই পদের জন্য বেশ কিছুটা এগিয়ে রেখেছিল।

আরও পড়ুন: গোলে ফিরলেন সালাহ, ফের লিগ শীর্ষে লিভারপুল

ফিফার কার্যকরী সমিতিতে প্রফুল প্যাটেলের অন্তর্ভুক্তিকে ‘ভারতীয় ফুটবলের ল্যান্ডমার্ক’ আখ্যা দিয়েছেন ফেডারেশনের ভাইস প্রেসিডেন্ট সুব্রত দত্ত। গোল.কম’কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ফেডারেশন প্রেসিডেন্টকে অভিনন্দন জানিয়ে তিনি বলেন, ‘এই পদের জন্য প্রফুল প্যাটেলই যোগ্যতম ব্যক্তি। তাঁর অগ্রণী ভূমিকা ভারতীয় ফুটবলকে একটা উচ্চতায় পৌঁছে দিয়েছে। আশা রাখি ফিফার কার্যকরী সমিতিতে তাঁর উপস্থিতি পরবর্তীতে এশিয়ার ফুটবলকে সর্বোতভাবে সাহায্য করবে।’

আরও পড়ুন: অবিসংবাদী নায়ক, ‘বাহুবলী’র বেশে রাসেলের ছবি টুইট কিং খানের

ফিফার এক্সিকিউটিভ প্যানেলে ফেডারেশন সভাপতির এই অন্তর্ভুক্তিতে উপকৃত হবে ভারতও। বিশ্বের দরবারে পরবর্তীতে ভারতের দাবিদাওয়া আরও জোরালো হবে বলেই মনে করা হচ্ছে। একইসঙ্গে ফিফার প্রথম সারির সদস্য দেশগুলির সঙ্গে ভারতের যোগাযোগ আরও সুদৃঢ় হবে।