নয়াদিল্লি: করোনার জেরে লকডাউন। আর তার ফলে ধুঁকছে দেশের অর্থনীতি। চাকরি হারাবার আশঙ্কায় দিন কাটাচ্ছে সাধারণ মানুষ। এহেন পরিস্থিতিতে সুখবর বয়ে আনতে পারে প্রধানমন্ত্রী মুদ্রা যোজনা। কোনও গ্যারান্টি ছাড়াই ব্যবসার জন্য প্রায় ১০ লক্ষ টাকা দিতে প্রস্তুত রয়েছে মোদী সরকার।

প্রধাণমন্ত্রী মুদ্রা যোজনার আওতায় কোনও গ্যারান্টি ছাড়াই এই টাকা দেবে সরকার। ছট ব্যবসার জন্য কোনও ব্যক্তি সর্বাধিক ১০ লক্ষ টাকা ঋণ নিতে পারবেন।

যে ব্যক্তি ঋণ নিতে চান, সে কী ধরনের ব্যবসা করবেন, ব্যবসার প্রকৃতি ইত্যদি জানাতে হবে কেন্দ্রকে। এছাড়া ঋণ নেওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় যাবতীয় নথি তৈরি রাখতে হবে।

পরিচয় সম্পর্কিত নথি যেমন প্যান কার্ড, আধার কার্ড, ভোটার আইডি কার্ড ইত্যাদি অংশীদারি সম্পর্কিত দলিল, কর নিবন্ধকরণ, ব্যবসায় লাইসেন্স ইত্যাদি একাধিক নথি ছাড়াও তৈরি রাখতে হবে যাঙ্কের সমস্ত নথি, ব্যবসায়িক পরিকল্পনাপত্র, প্রকল্পের প্রতিবেদন, ভবিষ্যতের আয় সম্পর্কিত আনুমানিক বিশ্লেষণ।

এরপর সব নথি তৈরি থাকলে নির্দিষ্ট ফর্ম ফলাপ করে আবেদন পত্র জমা দিতে হবে। সমস্ত ডকুমেন্টসের মধ্যে ঠিকানার প্রমাণপত্রঅ দিতে হবে। মূলত মানুষকে স্বনির্ভর করে তোলাই এই প্রধানমন্ত্রী মুদ্রা জোজনার লক্ষ্য।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।