স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: দেশ জুড়ে ৯ মিনিটের জন্য বাড়ির আলো নেভানো হলে আচমকা জোরাল ধাক্কা খেতে পারে পাওয়ার গ্রিড। আবার ৯টা বেজে ৯মিনিটের পরেই দেশ জুড়ে তৈরি হবে বিদ্যুতের বিপুল চাহিদা। এই টানাপড়েনে ঘটতে পারে বড়সড় বিপর্যয়। এই আশংকা উড়িয়ে রাজ্যকে আশ্বস্ত করলো কেন্দ্র। এরপরই বিদ্যুৎমন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় জানিয়েছেন, রবিবার রাতে বিদ্যুৎ সঙ্কটের আশঙ্কা নেই রাজ্যে।

শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় জানিয়েছেন, কেন্দ্রীয় বিদ্যুৎমন্ত্রী আর কে সিংয়ের সঙ্গে তাঁর কথা হয়েছে। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ফোন করে তাঁকে আস্বস্ত করেছেন। এমনিতেও রাজ্য বিদ্যুৎ দফতর সবরকম সমস্যা মোকাবিলার জন্য প্রস্তুত রয়েছে বলেও জানিয়েছেন শোভনদেববাবু। রবিবার রাত ৯টায় দেশজুড়ে ৯ মিনিটের জন্য সব লাইট বন্ধ করে মোমবাতি ও প্রদীপ জ্বালিয়ে করোনা মোকাবিলায় মহাশক্তি জাগিয়ে তোলার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

কিন্তু দেশজুড়ে আচমকা এই আলো নেভালে ও জ্বালালে তার প্রভাবে ভারতে গ্রিড বিপর্যয় হতে পারে বলেই আশঙ্কা করছে স্টেট লোড ডেসপ্যাচ সেন্টার ( এসএলডিসি )। এই কথা তারা বিদ্যুৎ মন্ত্রককে জানিয়েছে বলেও খবর। এই ঘটনার ফলে দেশে ব্ল্যাকআউট হয়ে যেতে পারে বলেও আশঙ্কা করছেন তাঁরা। তাদের বক্তব্য, ভারতে গ্রিডগুলির ক্ষমতা হল ৩৭০ গিগাওয়াট বিদ্যুৎ ধরে রাখার। সাধারণত বিদ্যুতের চাহিদা থাকে ১৫০ গিগাওয়াট। কিন্তু বিদ্যুতের চাহিদায় ঘাটতি দেখা গেলে অতিরিক্ত বিদ্যুতের পরিমাণ অনেকটা বেড়ে যাবে।

ফলে পাওয়ার গ্রিডের উপর চাপ পড়বে। আবার ৯ মিনিট পরে যখন সব বিদ্যুৎ একসঙ্গে জ্বলে উঠবে তখন সেই চাহিদার জোগান দিতে গিয়ে পুরো সিস্টেমটাই ভেঙে পড়তে পারে।

ফলে একাধিক বড় রাজ্যে ব্ল্যাকআউটের সমস্যা দেখা দিতে পারে রাজ্যের বিদ্যুৎমন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় বলেছেন, শুধু বাড়ির আলোর জন্য মোট প্রয়োজনের তুলনায় খুব সামান্যই বিদ্যুৎ খরচ হয়। সুতরাং, বিপর্যয়ের আশঙ্কা করার কোনও কারণই নেই। কেন্দ্রীয় বিদ্যুৎ মন্ত্রকের তরফে একটি প্রেস বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ৫ এপ্রিল প্রধানমন্ত্রী রাত ৯টার সময় ৯ মিনিটের জন্য বাড়ির আলো নেভানোর পরামর্শ দিয়েছেন। এর ফলে দেশের গ্রিড ব্যবস্থার উপর প্রভাব পড়তে পারে। আর তারজন্যই একাধিক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে বিদ্যুৎ মন্ত্রকের তরফে।

প্রধানমন্ত্রী শুধুমাত্র আলো নেভানোর আহ্বান জানিয়েছেন। তাই ফ্যান, এসি, ফ্রিজ, কম্পিউটার, টিভি বন্ধ করার দরকার নেই। শুধুমাত্র আলো নেভালেই হল। এই বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, সব স্থানীয় প্রশাসনকে জানানো হচ্ছে, রাস্তার আলো যাতে বন্ধ না হয়। তাতে সাধারণ মানুষের সমস্যা হতে পারে। এছাড়া হাসপাতাল, জরুরি পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত বিভিন্ন দফতর, পুলিস স্টেশনের আলো জ্বালিয়ে রাখারও নির্দেশ দিয়েছে বিদ্যুৎ মন্ত্রক। এই নির্দেশ মানলে পাওয়ার গ্রিডের সমস্যা অনেকটাই কমবে বলে জানানো হয়েছে।

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV