বিশেষ প্রতিবেদনঃ  ‘আলু’ দুই অক্ষরের এই ছোটো গোলগাল সবজির জনপ্রিয়তা রয়েছে সর্বএই। বিশেষ করে বাঙালীদের কাছে আলুর প্রতি প্রেম একটু অন্যরকমই। সবজির ঝুড়িতে হোক বা তরকারী, আলু না হলে চলে না আমজনতার। তবে ডায়াবেটিস বা অন্যান্য কারণে অনেকেই মাটির নীচের এই সবজিটির থেকে শতহাত দূরে থাকেন।

কেননা আলুর মধ্যে থাকা হাইপ্রোটিন তথা কার্বোহাইড্রেট রক্তে শর্করার মাএা বাড়িয়ে তোলে। যদিও ডায়াবেটিস রোগীরাও স্বল্প পরিমাণে আলু খেতেই পারেন এমনটাই জানাচ্ছে সম্প্রতি একটি গবেষণার তথ্য।

ক্লিনিক্যাল নিউট্রিশন নামক একটি জার্নালে প্রকাশিত রিপোর্টে গবেষকরা জানাচ্ছেন যে, কম গ্লাইসেমিক ইনডেক্স রয়েছে (GI) রয়েছে এমন আলুর ব্যবহার বা খাওয়া ডায়াবেটিস রোগীদের পক্ষে ক্ষতিকর নয়। এইগুলি রক্তে গ্লাইসেমিক নিয়ন্ত্রণ করতে সহায়তা করে।

এছাড়াও যারা টাইপ-২ ডায়াবেটিস রোগে আক্রান্ত তাঁদের প্রায়শই আলু সহ উচ্চ মাত্রার গ্লাইসেমিক রয়েছে এমন সব খাবার এড়িয়ে চলার পরামর্শ দেন চিকিৎসকেরা। কারন, উচ্চমাত্রার ‘জিআই’ যুক্ত খাবার রাতেরবেলা রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়িয়ে দেয়, যারফলে হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি তৈরি হয়।

তবে এই প্রথমবার গবেষকরা দেখিয়েছেন কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রিত একটি ক্লিনিকাল ট্রায়াল। যার মধ্যে টি ২ডি সহ ২৪ জন প্রাপ্তবয়স্কদের সন্ধ্যার খাবারের অংশ হিসাবে খাওয়া খাবার কোনও ব্যক্তির গ্লাইসেমিক নিয়ন্ত্রণের (জিআর) জন্য জিআই কোনও সঠিক পদ্ধতি নয়। এই সমীক্ষায় অংশগ্রহণকারীদের প্রত্যেককেই একই প্রাতঃরাশ এবং মধ্যাহ্নভোজন দেওয়া হয়েছিল।

তবে তাদের রাতের খাবার দেওয়া হয়েছিল, যার মধ্যে রয়েছে সাদা আলু (পরীক্ষার খাবার) যার মধ্যে তিনটি বিভিন্ন উপায়ে প্রস্তুত করা (সিদ্ধ, ভাজা, সিদ্ধ তারপর ঠান্ডা করা হয়) এছাড়াও বাসমতী চালের ভাতের সঙ্গেও আলুর পদ দেওয়া হয়েছিলো। অংশগ্রহণকারীরা প্রতিটি ট্রায়ালের মাঝে নয়দিনের বিরতি নিতেন এবং তারপর ফের আবার একই মেনুর খাবার খেতেন।

আর এই কয়দিন তাঁদের রক্তে শর্করার পরিমাণ মনিটর করা হতো৷ যা থেকে বোঝা যেত আলু টাইপ-২ ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য কতটা হিতকারক।

তবে গবেষকরা বলছেন, পরিমাণ মতো আলু মানব শরীরে কোনও ক্ষতি করে না। বরং আলু না খেলে নানারকম প্রোটিন, ভিটামিন থেকে বঞ্চিত হতে হবে। তাহলে আর কী ভাবছেন চোখ বন্ধ করে আজ থেকেই অল্প অল্প করে শুরু করুন আলু খাওয়া।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।