পাটনা: তেজস্বী যাদব, বিহারের বিরোধী দলনেতার পর এবার পোস্টার পড়ল লোক জনশক্তি পর্টি সুপ্রিমো রামবিলাস পাসোয়ানের নামে৷ বিহারের বৈশালী জেলার হরিবংশপুরে গ্রামবাসীরা এভাবেই নিজেদের ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ করলেন৷ সেই পোস্টারে রামবিলাস পাসোয়ানের নিরুদ্দেশ হওয়ার কথাই তুলে ধরছেন তারা৷ শুধু তাই নয়, সেই সঙ্গে এলজেপি সুপ্রিমো খুঁজে দিলে নগদ ১৫ হাজার টাকার পুরস্কার দেওয়ার কথাও বলা হয়েছে৷

বিহারে কেন্দ্রীয় খাদ্য ও উপভোক্তা বিষয়ক মন্ত্রী রামবিলাস পাসোয়ানের নিখোঁজের পোস্টার এবং ব্যানার ছড়িয়ে পড়েছে বলে জান গিয়েছে৷ এই সব ব্যানারে এলজেপি প্রধানের খোঁজ যে এনে দিতে পারবে তাকে নগদে পুরস্কার দেওয়ার কথা লেখা রয়েছে৷ পোস্টারের লেখা অনুযায়ী- ‘মন্ত্রীমহাশয় একটু এসি থেকে বেরিয়ে আমাদের অবস্থা দেখুন৷’ একটা পোস্টারে লেখা, ‘জলের হাহাকার, আর আমাদের সাংসদ নিখোঁজ৷’ এছাড়া স্থানীয় বিধায়কেরও নিখোঁজ পোস্টার এবং ব্যানার তুলে ধরেছে গ্রামবাসীরা৷ লেখা রয়েছে, বিধায়কের খোঁজ যে দেবে সে ৫ হাজার টাকা পুরস্কার পাবে৷ অভিযোগ, সাতটি শিশুর মৃত্যু হয়েছে, কিন্তু এখনও পর্যন্ত কোনও সাংসদ বা কোনও বিধায়ক এখানে আসেনি৷ এই ক্ষোভ থেকেই এইভাবেই পোস্টার নিয়ে পথে নেমেছে গ্রামবাসীরা৷

এর আগে বিহারের বিরোধী দলনেতা তেজস্বী যাদবের নামে পোস্টার দেখা যায়। যাঁর কাঁধে রয়েছে রাষ্ট্রীয় জনতা দল তথা জেডিইউ-এর দায়িত্ব। সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনের ফল ঘোষণার পর থেকেই তাঁর দেখা মেলেনি। এই অবস্থায় বিহারের মুজফফরপুর এলাকায় তেজস্বীর নামে দেখা যায় বিশাল হোর্ডিং। সেখানে লেখা রয়েছে যে বিশিষ্ট নেতা তেজস্বী যাদব নিখোঁজ। তাঁর খোঁজ দিতে পারলেই মিলবে নগদ পাঁচ হাজার ১০০ টাকা পুরস্কার। একই সঙ্গে আরও লেখা রয়েছে যে ২০১৯ সালের লোকসভা ভোটের ফল ঘোষণার পর থেকে তিনি নিখোঁজ। ঠিক যেমন একটা নিখোঁজ বিজ্ঞাপনে লেখা থাকে।

জানা গিয়েছে, স্থানীয় সমাজসেবী তমন্না হাসমির পক্ষ থেকে ওই হোর্ডিং টাঙানো হয়েছে। তাঁর মোবাইল নম্বরও দেওয়া হয়েছে ওই হোর্ডিং-এ। রাজ্যের প্রাক্তন উপমুখ্যমন্ত্রী তেজস্বী যাদবের খোঁজ পাওয়া গেলে ওই নম্বরে ফোন করে জানাতে বলা হয়েছে।