চণ্ডীগড়: কবে রাজনীতি ছাড়ছেন? এই প্রশ্ন উঠে গেল ক্রিকেট থেকে রাজনীতির ময়দানে আসা নভোজিত সিং সিধুর প্রতি। পোস্টার লাগিয়ে জানতে চাওয়া হল সেই প্রশ্ন।

ঘটনার সূত্রপাত গত এপ্রিল মাসের এক নির্বাচনী জনসভা ঘিরে। পঞ্জাবের এই কংগ্রেস বিধায়ক ওই জনসভায় দাঁড়িয়ে বিজেপিকে আক্রমণ করে বলেছিলেন, “গত ৭০ বছরে দেশের উন্নতিতে কোনও ভূমিকাই নেই তাদের৷ যা কিছু করেছে, তা কংগ্রেস করেছে।” পাশাপাশি তিনি আরও বলেন, “আমেঠি কেন্দ্রে কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী হেরে গেলে আমি রাজনীতি ছেড়ে দেব।”

আরও পড়ুন- বন দফতরের জমিতে বেআইনিভাবে পাথর খাদান, অভিযুক্ত তৃণমূল

সিধুর সেই মন্তব্যকেই হাতিয়ার করে পোস্টার পড়েছে পঞ্জাবের বিভিন জায়গায়। পোস্টারে তাঁর ছবির পাশে সেই বয়ানটিও লেখা হয়েছে। এরপরেই নিচের দিকে লেখা হয়েছে, “কবে রাজনীতি ছাড়ছেন? এবার আপনার কথা রাখার সময় এসেছে। আমরা অপেক্ষা করছি।” কে বা কারা ওই পোস্টার লাগিয়েছে তা অবশ্য স্পষ্ট নয়। কারণ কোনও ব্যক্তি বা সংস্থার নাম পোস্টারে লেখা নেই।

আরও পড়ুন- কন্যা সন্তানের জন্ম দেওয়ায় তাড়িয়েছে স্বামী, ঠাঁই নেই বাপের বাড়িতেও

সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনে উত্তরপ্রদেশের আমেঠি এবং কেরলের ওয়ানাড কেন্দ্র থেকে লড়াই করেন। দক্ষিণের রাজ্য কেরলে জিতলেও আমেঠি হারাতে হয়েছে রাহুলকে। ওই কেন্দ্রে জিতেছেন মোদীর মন্ত্রীসভার সদস্য স্মৃতি ইরানি। সেই সঙ্গে দীর্ঘদিন পরে গান্ধী পরিবারের হাতছাড়া হয়ে গিয়েছে আমেঠি লোকসভা আসনটি। প্রবল গেরুয়া ঝড়ে উত্তরপ্রদেস থেকে কেবল বারানসী কেন্দ্র থেকে জিতেছেন কংগ্রেস প্রার্থী সোনিয়া গান্ধী।

আরও পড়ুন- কলকাতাকে ‘সাহিত্যের শহর’ খেতাব দেওয়ার সম্ভাবনা ইউনেস্কোর

পোস্টারের আগে সোশ্যাল মিডিয়াতেও এই বিষয়টি নিয়ে আক্রমণের মুখে পড়তে হয়েছিল পঞ্জাবের মন্ত্রিসভার সদস্য সিধুকে। লোকসভা নির্বাচনের ফল ঘোষণা হতেই সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারীরা সিধুকে তাঁর প্রতিশ্রুতির কথা মনে করিয়ে দেন৷ ট্যুইটারে তো এই নিয়ে ট্রেন্ডও শুরু হয়ে গিয়েছে৷ অনেকে তাতে মজাদার কমেন্ট করেছেন৷ কেউ কেউ লেখেন, আরে কংগ্রেসও তো চায় সিধু রাজনীতি ছেড়ে দিক৷ প্রতিশ্রুতি পূরণ করে দেখাক পাজি৷ এখন দেখার সিধু নিজের প্রতিশ্রুতি রাখেন কিনা৷