স্টাফ রিপোর্টার, নন্দীগ্রাম : একুশের লড়াই জমজমাট। করোনাকালেও নিত্যদিনের রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে সরগরম বাংলা। আজ নন্দীগ্রামে সভা করবেন তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ইতিমধ্যেই তৃণমূলনেত্রীর সভা ঘিরে নন্দীগ্রামে সাজো-সাজো রব। জোড়াফুলের ব্যানার-ফেস্টুনে ছেয়ে গিয়েছে এলাকা। বিধানসভা ভোটের ঠিক আগে নন্দীগ্রামে সভা থেকে কী বার্তা দেন দলনেত্রী? সেদিকেই তাকিয়ে দলের নেতা-কর্মীরা।

একদিকে মুখ্যমন্ত্রীর আগমন ঘিরে যখন চলছে শেষ মুহুর্তের প্রস্তুতি তখনই অন্যদিকে নন্দীগ্রামের আমদাবাদ গ্রামে বিদ্যুৎ আর খুঁটিতে বেশ কয়েক জায়গায় ‘মমতা ব্যানার্জি গো ব্যাক’ স্লোগানের পোষ্টার পড়ল। আর এই ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে রাজনৈতিক মহলে। যদিও কে বা কারা এই কাজ করল তা এখনও জানা যায়নি। মমতার সভার কয়েক ঘন্টা আগে এই ধরনের পোস্টার পড়ায় স্বাভাবিক ভাবে অস্বস্তিতে শাসক শিবির। কড়া পুলিশি নিরাপত্তায় মুড়ে ফেলা হয়েছে গোটা নন্দীগ্রামের তেখালি মাঠকে। আর তারই মধ্যেই এই পোষ্টার ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে ।

এদিকে পূর্ব মেদিনীপুরের অধিকারী সাম্রাজ্যে থাবা বসিয়েছে গেরুয়া-শিবির। তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন শুভেন্দু অধিকারী, সৌমেন্দু অধিকারী। রাজনৈতিক মহলের একাংশ বলছে, অধিকারী বাড়ির আর এক ছেলে তথা শুভেন্দু অধিকারীর ভাই তমলুকের তৃণমূল সাংসদ দিব্যেন্দু অধিকারীর দল ছাড়াও এখন সময়ের অপেক্ষা।

 

শুভেন্দু-দিব্যেন্দুর বাবা তথা কাঁথির তৃণমূল সাংসদ বর্ষীয়ান শিশির অধিকারীও বেসুরো গাইছেন। এই পরিস্থিতিতে পূর্ব মেদিনীপুরে তৃণমূলের সংগঠন বেশ খানিকটা ভেঙেছে। শুভেন্দু অধিকারীকে সমর্থন জানিয়ে তাঁর সঙ্গে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন জেলার বহু নেতা-কর্মী।

এই আবহেই আজ নন্দীগ্রামে সভা করবেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আজ যখন নন্দীগ্রামের সভায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বক্তব্য রাখবেন, তখন সূদূর কলকাতায় রোড শো করবেন শুভেন্দু অধিকারী।

এই পরিস্থিতিতেই আজ নন্দীগ্রামে সভা মমতার। কলকাতা থেকে কপ্টারে মুখ্যমন্ত্রী পৌঁছবেন নন্দীগ্রামে। প্রথমেই প্রশাসনিক সভা সারবেন তিনি। তারপর দুপুরে প্রকাশ্য জনসভায় বক্তব্য রাখবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। নন্দীগ্রামের সভা থেকে তৃণমূলনেত্রী আজ কী বার্তা দেন সেদিকেই তাকিয়ে তাঁর দলের নেতা-কর্মীরা।

এদিকে, আজ নন্দীগ্রামে না থাকলেও আগামিকালই তৃণমূলের পাল্টা সভা করবে বিজেপি। মঙ্গলবার খেজুরিতে বিজেপির সভায় প্রধান বক্তা শুভেন্দু অধিকারী। মমতাকে জবাব দিতেই কাল খেজুরিতে সভা শুভেন্দুর।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।