শরীরচর্চার পরেই নিজের ত্বকের সেই গ্লো লক্ষ্য করেছেন? হ্যাঁ এটাই হলো শরীরচর্চার প্রভাব আপনার ত্বকের উপরে। শুধুমাত্র শরীরকে সুস্থ রাখতে নয়, ত্বককে সুন্দর ও উজ্জ্বল রাখতেও শরীরচর্চার প্রয়োজন রয়েছে। এই প্রয়োজনীয়তার কথাটি আমরা অনেকেই মাথায় রাখি না।

কিন্তু একটু ভালো করে লক্ষ্য করলে বুঝবেন যে সত্যিই পোস্ট ওয়ার্কআউট গ্লো বাস্তবেই হয়। তবে ব্যাপারটা যতটা সোজা ভাবছেন ততটা নয়। এই জন্যে আপনাকে একটু কাঠ-খড় পোড়াতেই হবে।

শরীরচর্চার সময় শরীর থেকে যে ঘাম বের হয় তার প্রভাব ত্বকের উপর পড়ে। শরীরচর্চার পরে হার্ট রেট বেড়ে যায়। পাশাপাশি সারা শরীরে রক্ত সঞ্চালন দ্রুত হয় এবং ত্বককে আরও বেশি করে পুষ্টি এবং অক্সিজেন পৌঁছে দেওয়া যায়। এর ফলে নতুন কোষ গঠন দ্রুত হয় যা আপনার ত্বককে ভেতর থেকে উজ্জ্বল করে তোলে। একেই আমরা বলি পোস্ট ওয়ার্কআউট গ্লো।

আরো পোস্ট- বাড়িতেই করোনা আক্রান্তরা করুন চিকিৎসা, পান দ্রুত সুস্থতা

কোলাজেন তৈরি হওয়ার ফলেই বয়স বেড়ে যাওয়ার ছাপ পড়ে না আমাদের ত্বকে এবং ত্বক আরো বেশি উজ্জল লাগে। কিন্তু উজ্জলতা আনতে গিয়ে আমরা কিছু ভুল করে ফেলি ওয়ার্ক আউট করার সময়। নিচের এই বিষয়গুলি মাথায় রাখবেন শরীরচর্চার সময়। এর ফলে ভবিষ্যতে শরীরচর্চা করার সময় নিজের ত্বকের ক্ষতি হবে না। বরং ত্বক ও স্বাস্থ্য দুইই ভালো থাকবে।

১. মেকআপ করে কখনোই ওয়াক আউট করবেন না। এতে ঘর্মগ্রন্থি গুলি আটকে যায় এবং পরে ব্রণ হতে পারে। এই ব্রণ আটকাতে কখনোই শরীরচর্চার সময় হাত দিয়ে মুখের কোনো অংশের স্পর্শ করবেন না। ঘাম এবং যে যন্ত্রের সাহায্যে এক্সারসাইজ করছেন তার মাধ্যমে আপনার হাতে ব্যাকটেরিয়া বা জীবনে চলে আসতে পারে। মুখে হাত স্পর্শ করলে তার প্রতিক্রিয়া খারাপ হতে পারে।

২. ওয়ার্কআউট শেষ হলে সঙ্গে সঙ্গে স্নান করে নেবেন। এর ফলে ওয়ার্কআউটের সময় নিঃসৃত ঘাম ও ময়লা আপনার শরীর থেকে দ্রুত বেরিয়ে যাবে।

৩. শরীরচর্চা করার সময় প্রচুর পরিমাণে জল পান করতে ভুলবেন না। এই সময় শরীর ঘামে। ফলে শরীরের প্রয়োজন হয় আদ্রতা। তাই যে কোনো হেলথ ড্রিঙ্ক বা জল পান করতে পারেন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.