নয়াদিল্লি: বর্তমান সময়ে আমরা প্রত্যেকেই নতুন কোনও বিকল্প জায়গায় বিনিয়োগের সন্ধান করছি। দেশে মিউচুয়াল ফান্ড এবং শেয়ার বাজারের বিনিয়োগের বিকল্প সত্ত্বেও, অনেক বিনিয়োগকারী তাঁদের বিনিয়োগের সুরক্ষার দিকে আরও বেশি গুরুত্ব দেয়। নিরাপদ রিটার্নের মাধ্যমে পোস্ট অফিসের স্কিম এক্ষেত্রে সেই বিনিয়োগকারীদের কাছে বড় আকর্ষণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। লোকেরা প্রায়ই মোটা লাভের জন্য ভুল জায়গায় ব্যয় করে। এমনটা মোটেই ঠিক না।

পোস্ট অফিসে বেশ কয়েকটি ক্ষুদ্র সেভিংস স্কিম রয়েছে। এগুলিতে বিনিয়োগ করলে সরকারি গ্যারান্টিতে কর ছাড়ের সঙ্গে সঙ্গে ভালো রিটার্ণও থাকে। এর আওতায় আপনি দেড় লক্ষ টাকা পর্যন্ত কর ছাড় পেতে পারেন।

মান্থলি ইনভেস্মেন্ট স্কিম(এমআইএস) – আপনি যদি ঝুঁকিপূর্ণ স্কিমগুলিতে বিনিয়োগ করতে না চান তবে আপনার জন্য মাসিক আয় প্রকল্প (এমআইএস) একটি দারুণ বিকল্প। মাসিক আয় প্রকল্পে গ্রাহক ৬.৬০ শতাংশ সুদ পান। মাসিক আয় প্রকল্পের নামে এটি স্পষ্ট যে সুদের পরিমাণ প্রতি মাসে দেওয়া হয়। প্রতি মাসে আপনার সেভিংস অ্যাকাউন্টে সুদের পরিমাণ যুক্ত করা হয়। এই অ্যাকাউন্টে সর্বনিম্ন ১৫০০ টাকা থেকে সর্বাধিক সাড়ে চার লাখ টাকা অ্যাকাউন্টে রাখা যেতে পারে।

এমআইএসের ম্যাচিওরিটি পিরিয়ড হল ৫ বছর। সবচেয়ে বড় সুবিধা হল, আপনি একটি পোস্ট অফিসে যতখুশি এমআইএস স্কিম করতে পারেন। এছাড়া অ্যাকাউন্ট খোলার পর অ্যাকাউন্ট হোল্ডার চাইলে তাঁর আত্মীয় বা বাড়ির কাউকে নমিনিও রাখতে পারেন। জয়েন্ট অ্যাকাউন্টের ক্ষেত্রে দুই বা তিনজনও চাইলে একসঙ্গে জয়েন্ট অ্যাকাউন্ট খুলতে পারেন।

এছাড়া কোনও ব্যক্তি চাইলে কোনও পোস্ট অফিসে সেভিংস অ্যাকাউন্ট খুলতে পারেন। এক্ষেত্রে গ্রাহকেরা বার্ষিক ৪ শতাংশ সুদ পান। ২০ টাকার নগদ অর্থের সঙ্গে যে কোনও ব্যক্তি পোস্ট অফিসে বিনিয়োগ করতে পারেন।

সপ্তম পর্বের দশভূজা লুভা নাহিদ চৌধুরী।