ছবি- সৈকত ঘোষ
লেখক সৈকত ঘোষ

সৈকত ঘোষ, কলকাতা: ঠিক ৭৪ বছর আগে, আমাদের দেশ ভারত স্বাধীনতা লাভ করেছিল। বহু স্বাধীনতা সংগ্রামী তাদের প্রাণ বিসর্জন দিয়েছেন। তাঁদের ভাবনা ছিল একটাই। তাঁদের স্বপ্নের ভারতবর্ষ একদিন স্বাধীনতা লাভ করবে। আর তার জন্য প্রাণের তোয়াক্কা করেননি তাঁরা।

এটাই ভেবেছিলেন যে, যেখানে সমস্ত মানুষ স্বাধীনভাবে বাঁচতে পারবে। থাকবে না কোনও পরাধীনতার শৃঙ্খল। থাকবেনা কোনও বৈষম্য। ইংরেজ শাসন থেকে মুক্ত হয়ে প্রতিটি ভারতবাসী পাবে মুক্তির আনন্দ। যেখানে থাকবে না কোনও ভয়, থাকবে না কারও চোখ রাঙানি। আজ আমরা হয়তো ইংরেজ শাসন থেকে মুক্ত। কিন্তু আমরা কি সত্যিকারের স্বাধীনতা লাভ করেছি ?

১৫ই আগস্ট আসলে আমরা ঘটা করে পতাকা উত্তোলন করি। মিষ্টি বিতরণ করি, স্বাধীনতা দিবস উদযাপন করি। স্বাধীনতা মানে কি তাহলে শুধুমাত্র ১৫ই আগস্ট পালন করা ?

স্বাধীনতা মানুষকে আনন্দ দেয়, দেয় মুক্তির স্বাদ। দেয় কর্ম স্বাধীনতা, দেয় বাক স্বাধীনতা। হ্যাঁ, স্বাধীনতা আছে। যারা আমাদের দেশের নেতা মন্ত্রী, পুঁজিপতি, যারা প্রচুর অর্থের অধিকারী তাদের কাছে আছে। আজ সাধারণ মানুষের কোন স্বাধীনতা নেই। কোনও না কোনও রাজনৈতিক দল, আমাদের দেশের সাধারণ মানুষকে পুতুলের মতন নাচায়। কর্মস্থলে মালিকপক্ষ তাদের স্বার্থে ব্যবহার করে থাকে আমাদের।

তবে একটু পরিবর্তন হয়েছে, আগে আমরা অত্যাচারিত হতাম ইংরেজের হাতে আর এখন দেশের মানুষকেই ভয়। আগেও যেমন কৃষক মৃত্যু হত, এখনও তাই ঘটে। আগে যেরকম সাধারণ মানুষের কোনও মূল্য ছিল না, এখনও তা নেই। মূল্য আছে নেতা-মন্ত্রী ও পুঁজিপতিদের।

তবে আমি বিশ্বাস করি, আমাদের ভারতবর্ষে নতুন সূর্য উঠবে, যেখানে থাকবে না কোন ভেদাভেদ, যেখানে থাকবে না কোনও রাজনৈতিক শোষণ। যেখানে প্রতিটি ভারতবাসী বলতে পারবে, আমরা সবাই রাজা আমাদের এই রাজার রাজত্বে….

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও