স্টাফ রিপোর্টার , কলকাতা : গরমে নাজেহাল অবস্থা বাংলার। দক্ষিণবঙ্গের অবস্থা সব থেকে করুন। বৃষ্টির দেখা কার্যত নেই। এমত অবস্থায় কেমন থাকবে আগামী কয়েকদিনের আবহাওয়া? তা জানাল আলিপুর আবহাওয়া দফতর।

হাওয়া অফিসের তরফে জানানো হয়েছে যে আগামী কয়েকদিন বৃষ্টির কিছুটা সম্ভাবনা রয়েছে। তবে সব সম্ভাবনাই উত্তরবঙ্গে। মঙ্গলবার পর্যন্ত রাজ্যের ৭ টি জেলায় বৃষ্টিপাত হতে পারে। বৃষ্টি হতে পারে উত্তরবঙ্গের জলপাইগুড়ি, দার্জিলিং, কালিম্পং, আলিপুরদুয়ার, কোচবিহার, দুই দিনাজপুর, মালদায়। মূলত উত্তরবঙ্গের জেলাগুলিতেই স্বস্তির বৃষ্টি নামার পূর্বাভাস দিয়েছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর।

উত্তরবঙ্গে শুধু বৃষ্টির আশা নয়, বৃষ্টি হচ্ছেও। তবে দক্ষিণবঙ্গে তেমন বৃষ্টির সম্ভাবনা নেই। তবে দক্ষিণবঙ্গের কয়েকটি জেলায় বজ্রবিদ্যুৎ-সহ বিক্ষিপ্ত বৃষ্টি হতে পারে। পশ্চিম মেদিনীপুর, ঝাড়গ্রাম, বাঁকুড়া, বীরভূম, পশ্চিম বর্ধমান, মুর্শিদাবাদে বৃষ্টির সঙ্গে ঘণ্টায় ৩০-৪০ কিলোমিটার বেগে ঝড়ো হাওয়া বইতে পারে।

এদিকে কলকাতা ও সংলগ্ন এলাকায় এখনই বৃষ্টির কোনও পূর্বাভাস নেই। কলকাতায় আকাশ মেঘলা থাকবে। তাই সর্বোচ্চ তাপমাত্রা নতুন করে আর বাড়বে না। শুক্রবার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৫ ডিগ্রি, যা স্বাভাবিক বলছে হাওয়া অফিস। অন্যদিকে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ২৭.৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এটা স্বাভাবিকের থেকে ২ ডিগ্রি বেশি। এদিকে শনিবার কলকাতার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২৬.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা স্বাভাবিকের থেকে ১ ডিগ্রি বেশি। হাওয়া অফিস বলছে এদিন সর্বোচ্চ তাপমাত্রা থাকবে ৩৫ থেকে ৩৭ ডিগ্রির মধ্যে।

উল্লেখ্য, বুধবার শহরের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৮.৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা স্বাভাবিকের তুলনায় ৩ ডিগ্রি বেশি। সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ২৬.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা স্বাভাবিকের চেয়ে এক ডিগ্রি বেশি। বাতাসে আপেক্ষিক আর্দ্রতার পরিমাণ সর্বাধিক ৭৪ শতাংশ, ন্যূনতম ৫৭ শতাংশ। বঙ্গোপসাগর থেকে আসা আর্দ্র বাতাসের জেরে ১৭ এপ্রিল থেকে উত্তর-পূর্ব ভারতে প্রায় সব জায়গাতেই- অরুণাচল প্রদেশ, অসং, মেঘালয়, নাগাল্যান্ড, মণিপুর, মিজোরাম, ত্রিপুরায় বজ্রবিদ্যুৎ-সহ বৃষ্টি এবং ঝড়ো হাওয়ার সম্ভাবনা থাকবে। এর মধ্যে অরুণাচল প্রদেশ, অসম, মেঘালয়ে ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনাও রয়েছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.