আন্তর্জাতিক নারী দিবসে দেখে নেওয়া যাক বিগত কয়েক বছরের বেশ কয়েকটি ওয়েব সিরিজের এমন কিছু নারী চরিত্র যারা চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে উইমেন এমপাওয়ারমেন্ট আসলে কী হতে পারে:

1.যখন মির্জাপুরে বীণা তাঁর আপত্তিজনক ও অপমানজনক শ্বশুরকে হত্যা করে।

2. মেড ইন হেভেন ওয়েব সিরিজে যখন,প্রিয়াঙ্কা মিশ্র তাঁর বিয়ের মণ্ডপ ছেড়ে চলে যান কারণ তাঁর স্বামী ও পরিবার প্রিয়াঙ্কার বাবা-মায়ের কাছ থেকে যৌতুক দাবি করে। প্রিয়াঙ্কা বলে, “আমায় বিয়ে করার জন্য কাউকে একটা পয়সা দেব না”

3. সুস্মিতা সেন অভিনীত ‘আরিয়া’ ওয়েব সিরিজে শোয়ের গ্রিপিং ফাইনালেতে সে তাঁর স্বামীর হত্যার প্রতিশোধ নিয়েছিল।

4. নেভার হ্যাভ আই এভার ওয়েব সিরিজে,’ডেভি’ কে তাঁর মুখে এক্সট্রা ফেসিয়াল হেয়ার এর জন্য যখন একটি ছেলে তাঁকে অপমান করার চেষ্টা করে,তখন ‘ডেভি’ উত্তম মধ্যম উত্তরটা মনে পরে।যেখানে ‘ডেভি’ সে বলছে, তোমার মেকআপ করা উচিত নয়, কারণ সেই মেকআপ তোমার গোঁফে গিয়ে জমা হবে।আর তাতে প্রত্যুত্তরে ডেভি বলে, ” আমি অন্তত আমার গোঁফটাকে বড় করতে পারি”।

5. ওয়েব সিরিজ ‘দ্য ক্রাউন’এ, প্রিন্স ফিলিপ মার্গারেট থ্যাচারের শংসাপত্রগুলি নিয়ে সন্দেহ নিয়ে কৌতুহল প্রকাশ করেন, রানী তাঁর জবাবে জানায়, “যমজ সন্তানের জন্ম দেওয়ার সময় তিনি ব্যারিস্টার হিসাবে নির্বাচিত হয়েছিলেন। আপনি চেষ্টা করে দেখুন”।

6. ‘গেম অব থ্রোন’ এ লিটল ফিঙ্গার বলে, “জ্ঞানই শক্তি”। এবং শার্সি তাকে দেখায় যে শুধুমাত্র “শক্তিই শক্তি।”

7. ‘ফ্লিবাগ’ ওয়েব সিরিজে মুখ্য চরিত্র ফ্লিবাগ এর কাছে মার্টিন,ফ্লিবাগ এর বোনের গর্ভপাত সম্পর্কে আপত্তিজনক ও নোংরা মন্তব্য ছুড়ে দেন,তখন ফ্লিবাগ তাঁকে একটা জোড়ে ঘুষি মারেন।

8. ‘সেক্স এডুকেশন’ ওয়েব সিরিজে একটি মেয়ের একটি নগ্ন ছবি প্রকাশ হয়ে যাবার পর সেই মেয়েটির সমর্থনে সংহতি দেখাতে, অন্যান্য ছাত্রীরা দাবি করতে শুরু করেন যে এই নগ্ন ছবিটি তাদের।

9. ‘স্কিট ক্রিক’ এর অ্যালেক্সিস রোজ যখন জানতে পারে তাঁর প্রেমিক গ্যালাপাগোসে চলে যাচ্ছে তখন প্রেমিকের সাথে চলে না গিয়ে সে সিদ্ধান্ত নেয়, নিজের ক্যারিয়ারকে ফার্স্ট চয়েজ বানানোর।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।