কলকাতা: সবসময়ই বিতর্কের শীর্ষে থাকেন পুনম পাণ্ডে। করোনা পরিস্থিতির মাঝে বিয়েও করেছেন তিনি। এমনকি সেই বিয়ে নিয়েও তৈরি হয়েছিল বিতর্ক। এবার ফের অভিযোগের মুখে সেই পুনম। গ্রেফতার করা হল পুনম পাণ্ডেকে।

গোয়ায় অশ্লীল ভিডিও শুট করেছেন তিনি। আর যে জায়গায় শ্যুট করেছেন, সেটা মোটেই উপযুক্ত নয়। আর তার পরিপ্রেক্ষিতেই পুনমের বিরুদ্ধে গোয়া ফরওয়ার্ড পার্টিং মহিলা শাখার তরফে অভিযোগ দায়ের করা হয়। এরপরই তাঁকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

এছাড়াও একজন ব্যক্তি পুনমের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছেন। যদিও তাঁর নাম জানা যায়নি বলেই জানিয়েছেন কানাকোনা থানার পুলিশ। জেরার জন্য অভিনেত্রী-মডেলকে ডেকে পাঠানোও হতে পারে।

গোয়া ফরওয়ার্ড পার্টির সহ সভাপতি দুর্গাদাস কামাতের অভিযোগ, চাপোলি ড্যামে অশ্লীল ভিডিও শুট করেছেন পুনম। আসলে ওই জায়গাটি জলসম্পদ দফতরের নিয়ন্ত্রণাধীন। এন্টারটেনমেন্ট সোসাইটি অফ গোয়ায় মূলত এখানে শুটিংয়ের অনুমতি দিয়ে থাকে। তাই কীভাবে ওই জায়গায় এমন অশ্লীল শুটিং করার অনুমতি দেওয়া হল সেই প্রশ্নও করেন ফরওয়ার্ড পার্টির সহ সভাপতি।

নীল ছবি তৈরির জায়গা হিসেবে কেন করে তোলার চেষ্টা হচ্ছে, সেই প্রশ্নও উঠেছে। এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে গোয়ার মুখ্যমন্ত্রীর মন্ত্রীর পদত্যাগও দাবি করেন।

কিছুদিন আগেই বিয়ে হয় পুনমের। বিয়ের পর হানিমুনে যান তিনি। এরপরই স্বামীর বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ আনেন তিনি।

বিয়ের পর একসঙ্গে গোয়ায় গিয়েছিলেন তাঁরা। এরপরই কয়েকদিন আগেই পুনম তাঁর স্বামীকে পুলিশে দেন। সাক্ষাৎকারে পুনম জানান, প্রায় দেড় বছর ধরে স্যাম বম্বের সঙ্গে সম্পর্কে রয়েছেন তিনি। শুরু থেকেই অত্যাচার করতেন স্যাম।

বিয়ে করলে সমস্ত কিছু ঠিক হয়ে যাবে। এমনটা ভেবেই সেপ্টেম্বরের ১১ তারিখ বিয়ে করেছিলেন পুনম। কিন্তু পরিস্থিতি আরও খারাপ হয় গোয়ায় মধুচন্দ্রিমায় যাওয়ার পর। ২৩ সেপ্টেম্বর রাতে অত্যাচার চরমে পৌঁছায়। হোটেলের ঘর থেকে চিৎকার-চেঁচামেচির শব্দ শুনে কর্মীরাই গোয়া পুলিশকে খবর দিয়েছিলেন। স্যাম নাকি নৃশংসভাবে তাঁকে মারধর করছিলেন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।