কলকাতা: আন্তর্জাতিক বিজ্ঞান উৎসবে রাজ্য সরকারের তরফ থেকে কোন প্রতিনিধি উপস্থিত না হওয়াতে ক্ষুব্ধ বাবুল সুপ্রিয়৷ তিনি বলেন, পশ্চিমবঙ্গে এই মুহূর্তে রাজনীতি হচ্ছে সবথেকে দূষিত।

বিজেপি সরকারের এই প্রতিমন্ত্রী সংবাদমাধ্যমের সামনে জানিয়েছেন, পঞ্চমবার আন্তর্জাতিক বিজ্ঞান উৎসব পশ্চিমবঙ্গতে হচ্ছে। আর এই অনুষ্ঠানে রাজ্য সরকারের তরফ থেকে কোন প্রতিনিধি নেই। যা খুব দুঃখজনক। তিনি আরও জানিয়েছেন রাজ্যর মুখ্যমন্ত্রীও এই অনুষ্ঠানে হাজির ছিলেন না। প্রধানমন্ত্রীর তরফ থেকে তাকে জানানো হয়েছিল।

বাবুল সুপ্রিয় জানিয়েছেন, ‘আমরা এখানে অনেক আশা নিয়ে এসেছি। পঞ্চমবারের জন্য আন্তর্জাতিক এই বিজ্ঞান উৎসব পশ্চিমবঙ্গতে হচ্ছে আর কোন মন্ত্রী এই অনুষ্ঠান উপলক্ষে আসেননি। কলকাতার রাজনীতি দূষিত হয়ে গেছে।’ এই ধরনের ঘটনা যাতে রাজ্যতে না ঘটে তাও তিনি জানিয়েছেন। এছাড়াও তিনি মন্তব্য করেছেন, একজন বাঙালি হিসেবে তিনি যথেষ্ট লজ্জিত। অন্য রাজ্য থেকে বিভিন্ন মন্ত্রীরা এলেও পশ্চিমবঙ্গ থেকে কোন মন্ত্রী এই অনুষ্ঠানে আসেননি।

এই অনুষ্ঠান উপলক্ষে রাজ্যর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি দফতরের মন্ত্রীর কাছে নিমন্ত্রনপত্র পাঠানো হয়েছিল। তবে তার কোন উত্তর পাওয়া যায়নি বলেও জানিয়েছেন বাবুল। আসামের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী কেশব মহান্ত, মধ্যপ্রদেশের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী পি.সি শর্মা সহ বিভিন্ন রাজ্যর রথী মহারথীরা এই বিজ্ঞান উৎসব উপলক্ষে উপস্থিত হয়েছিলেন।

আসানসোলের বিজেপি সাংসদ জানিয়েছেন, যদি রাজ্যর মন্ত্রীরা উপস্থিত না থাকেন তাহলে কিভাবে আশা করব রাজ্যর সমস্যা নিয়ে তারা দিল্লিতে গিয়ে কথা বলবেন। এছাড়াও তিনি কটাক্ষ করে বলেছেন, রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর বৈঠকে যাবেন না আর একদিন তিনি আচমকা গিয়ে ফুল উপহার দেবেন এভাবে কোন সমস্যার সমাধান হয় না। এর আগে রাজ্যর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দিল্লিতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং অমিত শাহের সঙ্গে দেখা করে এসেছিলেন।

এছাড়াও দূষণ নিয়ন্ত্রনের বিষয় নিয়ে জিজ্ঞস করাতে তিনি জানিয়েছেন, তাদের তরফ থেকে অনেক চিঠি দেওয়া হয়েছে কিন্তু বেশীরভাগ চিঠির কোন উত্তর আসেনি। শস্য পোড়ানো কলকাতায় দূষণের ক্ষেত্রে কোন ব্যাপার নয় তবে কলকাতাতে দূষণের কারণ কি তা জানতে গেলে কথা বলা প্রয়োজন। কিন্তু তা হচ্ছে না।অর্থাৎ রাজ্য সরকারের প্রতি বাবুল সুপ্রিয় যে যথেষ্ট ক্ষুব্ধ তা বোঝা গেল আবারও।

বাবুল সুপ্রিয়র করা মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে তৃণমূল সরকারের এই শীর্ষস্থানীয় নেতা জানিয়েছেন, সারা দেশে বিজেপির সাম্প্রদায়িকতার রাজনীতি করার বিষয়টি সকলেই জানে।