ত্রিপুরার সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত ছবি

আগরতলা: শান্তিপূর্ণ নির্বাচন হবে বলে জানিয়েছিল নির্বাচন কমিশন৷ সেই আশ্বাসবাণী আর খাটছে না বলেই অভিযোগ৷ রাজ্যের পশ্চিম ত্রিপুরা লোকসভা কেন্দ্রের বিভিন্ন বুথে শাসক বিজেপির বিরুদ্ধে ছাপ্পা দেওয়ার অভিযোগ উঠতে শুরু করেছে৷ সেই সঙ্গে বিরোধী শিবিরে থাকা সিপিএম ও কংগ্রেস সমর্থকরা পরস্পর সংঘর্ষে জড়াচ্ছে বলেও খবর৷ সবমিলে বেলা গড়াতেই ত্রিপুরার ভোটচিত্র গরম হতে শুরু করেছে৷

এরপরে নির্বাচনী সংঘাতের রঙ পাল্টে যায়৷ সিপাহীজলার চড়িলাম এলাকায় বুথে বুথে সিপিএম ও কংগ্রেস সমর্থকদের মধ্যে হাতাহাতি৷ সংঘাতের জেরে দু পক্ষের অন্তত ৮ জন জখম৷ তাদের মধ্যে চার জনের অবস্থা গুরুতর বলে জানা গিয়েছে৷ তবে দুই বিরোধীপক্ষ শাসক বিজেপির বিরুদ্ধেও সরব৷

সকাল থেকে ভোট শুরুর পরেই প্রথম খবর এসেছিল বিজেপির বিরুদ্ধে৷ বিভিন্ন বুথে ভোটারদের ঢুকতে বাধা দেওয়া হচ্ছে, ছাপ্পাও চলছে বলে অভিযোগ করে প্রধান বিরোধী দল সিপিএম৷ তবে মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব ভোট দিতে এসে জানান নির্বাচন হচ্ছে শান্তিতেই৷ অন্যদিকে বাম প্রার্থী তথা বিদায়ী সাংসদ শঙ্কর প্রসাদ দত্ত ভোট দিয়ে এসে বলেন, নির্বাচন নির্বিঘ্নে হলে জয় নিশ্চিত৷ আর তৃতীয় প্রতিদ্বন্দ্বী তথা অন্যতম আলোচিত কংগ্রেস নেতা সুবল ভৌমিক আগে থেকেই ভোট কারচুপির বিরুদ্ধে সরব হয়ে বিক্ষোভ শুরু করেছেন৷ এই কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী প্রতিমা ভৌমিক জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী৷

গত বিধানসভা নির্বাচনে ত্রিপুরায় দীর্ঘ ২৫ বছরের বাম শাসন শেষ হয়৷ জয়ী হয় বিজেপি ও আইপিএফটি জোট৷ তারপরেই গ্রাম পঞ্চায়েত ও উপজাতি স্বশাসিত এলাকার নির্বাচনে বিপুল জয় পায় বিজেপি৷ নব্বই শতাংশের বেশি আসনে জয়ী হওয়ার পর শাসক দলের বিরুদ্ধে রিগিংয়ের অভিযোগ উঠেছে৷ আর লোকসভা নির্বাচনের প্রচারে গিয়ে বাধা পিতে হয়েছে প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা বিরোধী নেতা মানিক সরকারকে৷