মুম্বই: সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যু ঘিরে চলছে মুম্বই পুলিশের তদন্ত। পুলিশ জানিয়েছেন আত্মঘাতী হয়েছেন অভিনেতা। বহুদিন ধরে তিনি অবসাদে ভুগছিলেন। যদিও সেই অবসাদের কারণ কী তা এখনো জানা যায়নি। নেটিজেন এবং অনুরাগীরা সিবিআই তদন্তের দাবিতে সরব হয়েছেন। পুলিশ ইতিমধ্যেই ৩৪ জনকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে। সর্বভারতীয় সংবাদ মাধ্যমের প্রতিবেদন থেকে জানা যাচ্ছে এবার চিত্র সমালোচক দের জিজ্ঞাসা করবে মুম্বই পুলিশ।

বহু ক্ষেত্রে থেকেই অভিযোগ উঠেছে সুশান্ত সিং রাজপুত এর ছবির পেইড রিভিউতে সমালোচকরা নেগেটিভ মন্তব্য করতেন। নেটিজেন এবং অনুরাগীদের দাবি ষড়যন্ত্রের শিকার হওয়ার ফলেই এই চিত্র সমালোচকরা ইচ্ছে করে নেগেটিভ রিভিউ লিখতেন সুশান্তের ছবি সম্পর্কে। এই অভিযোগের উপর ভিত্তি করেই চিত্র সমালোচক দের জিজ্ঞাসাবাদ করবে পুলিশ।

এই চিত্র সমালোচকরা অর্থের বিনিময়ে ছবির নেগেটিভ রিভিউ করতেন বলে জানা গিয়েছে। কিন্তু কারা বা কে তাদের টাকা দিতেন সুশান্তের ছবির নেগেটিভ রিভিউ লেখার জন্য তা তদন্ত করে দেখতে চায় মুম্বই পুলিশ। সূত্রের খবর অনুযায়ী, ছবির স্টোরিলাইন, প্লট সমস্ত নির্বিশেষে নেগেটিভ রিভিউ করা হতো।

একটি ছবি মুক্তির আগে চিত্র সমালোচক দের জন্য আলাদা করে স্ক্রিনিং করা হয়। সেখানে তারা একটি ছবিকে ৫-এর মধ্যে রেটিং দেন। একটি ছবি কতটা চলবে তা এই রেটিং এর উপর অনেকটাই নির্ভর করে। বহু সময় ছবির পরিচালকরা এই সমালোচকদের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়ে পজেটিভ রিভিউ লিখিয়ে নেন। কিন্তু সুশান্তের ক্ষেত্রে বাইরে থেকে কেউ নেগেটিভ রিভিউ দেখাতো বলে দাবি উঠেছে বিভিন্ন ক্ষেত্র থেকে। এটিও নেপোটিজম এর একটি অংশ বলে মনে করা হয়।

সম্প্রতি পরিচালক সঞ্জয় লীলা বনশালিকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে মুম্বই পুলিশ। প্রাথমিকভাবে জানা গিয়েছিল, সুশান্ত সিং রাজপুতের আরও কমিটমেন্ট থাকায় বনশালির চারটি ছবি থেকে তাঁকে বাদ দেওয়া হয়েছিল।

সোমবার টানা তিনঘণ্টার বয়ান রেকর্ড করেছেন পরিচালক সঞ্জয় লীলা বনশালি। পাশাপাশি, বনশালির প্রোডাকশন হাউসের সঙ্গে সুশান্ত সিং রাজপুতের চুক্তিগুলি এবং যে প্রজেক্টগুলি বন্ধ হয়েছে তা নিয়ে তদন্ত করা হচ্ছে। পদ্মাবত’ এবং ‘রাম লীলা’ খ্যাত পরিচালক আগেই পুলিশকে জানিয়েছিলেন, সুশান্ত সিং রাজপুতের কাছে তাঁর প্রজেক্টের জন্য ডেট খালি ছিল না তাই অন্য কাউকে এই চরিত্রটি দিয়ে দেওয়া হয়েছিল।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও