স্টাফ রিপোর্টার, বালুরঘাট: টাকার লোভ দেখিয়ে বাবাকে হাত করেছিল৷ তারপর নাবালিকাকে বিয়ের ছক কষেছিল স্থানীয় এক যুবক৷ কিন্তু সে গুড়ে বালি৷ পরিকল্পনার বাস্তবায়নের আগেই তা বানচাল করে দিল পুলিশ। স্থানীয় এক যুবক ফুসলিয়ে বছর ষোলোর একটি মেয়েকে বিয়ে করে ভিন রাজ্যে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছিল।

এলাকারই বাসিন্দা মারফত এই বিয়ের খবর পেতেই পুলিশ সেই নাবালিকাকে উদ্ধার করে চাইল্ড লাইনের হাতে তুলে দেয়৷ গোটা ঘটনায় দক্ষিণ দিনাজপুরের বংশীহারি থানা এলাকার চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে স্থানীয় আমবই গ্রামে বাড়ি পেশায় দিনমজুর কালু সরকারের। দিন আনা দিন খাওয়া পরিবারের অবস্থা এতটাই খারাপ যে প্রাথমিকের পর মেয় আর পড়াতে পারেননি৷ পরিবারের এই দুরবস্থার সুযোগ নেয় পাশের গ্রাম করখা’র যুবক পুলক সরকার। সে কালু সরকারকে হাত করে মেয়েটিকে বিয়ের প্রলোভন দেয়। বিয়ে করে তাকে বাইরে দূরে নিয়ে যাওয়ারও পরিকল্পনা করে সে।

সেই মোতাবেক শনিবার সকালেই আমবই গ্রামে কালু সরকারের বাড়িতে গিয়ে ওঠে পুলক। ইতিমধ্যেই বিয়ের খবর গিয়ে পৌঁছায় বংশীহারি থানার অধীন দৌলতপুর ফাঁড়িতে। খবর পাওয়া মাত্রই ফাঁড়ির পুলিশ স্থানীয় ব্লক প্রশাসনকে সাথে নিয়ে পুলক সরকারকে আটক ও মেয়েটিকে উদ্ধার করে।

চাইল্ডলাইনের কোঅর্ডিনেটর সুরজ দাস জানিয়েছেন যে পরিবারের অর্থনৈতিক অবস্থা খুবই খারাপ হওয়ায় সোনালির বাবা মা তাকে অল্প বয়সেই বিয়ে দিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছিল। পুলিশের তৎপরতাতেই মেয়েটিকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে৷