হাওড়া: রাতের অন্ধকারে দুষ্কৃতী দল কিশোরীদের তুলে নিয়ে গিয়ে শারীরিক নিগ্রহ করছে৷ এই অভিযোগে তুলকালাম বাধল হাওড়ার জগাছা থানা এলাকায়৷ দফায় দফায় অবরুদ্ধ হয় কোনা এক্সপ্রেসওয়ে। পরিস্থিতি সামাল দিতে নামানো হয় বিশাল পুলিশ বাহিনী৷ গণ্ডগোলের খবর পেয়ে ছুটে আসেন দুই মন্ত্রী৷

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, রাতের অন্ধকারে কালো কাপড়ে মুখ ঢেকে কয়েকজন দুষ্কৃতী সাঁতরাগাছি স্টেশন সংলগ্ন সুলতানপুর বস্তিতে ঢুকে শিশু কন্যা ও কিশোরীদের শারীরিক নিগ্রহ করছে। বৃহস্পতিবার রাতেও এক কিশোরীকে তুলে নিয়ে যায় দুষ্কৃতীরা। দু’ঘণ্টা পর তাকে খুঁজে বের করেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

তাঁদের অভিযোগ, পুলিশের কাছে অভিযোগ জানিয়েও কোনও ফল হয়নি। শুধু তাই নয় দুষ্কর্ম করার পর তারা আশ্রয় নিচ্ছে এলাকার অন্যতম একটি বিলাসবহুল এক অবসানে। যে কারণে বিক্ষুব্ধ জনতা শুক্রবার ওই আবাসনের মধ্যে ঢুকতে গেলে শুরু হয় অশান্তির সূত্রপাত। এদিন হাওড়ার পুলিশ কমিশনার বিশাল পুলিশ ও র‍্যাফ বাহিনী নিয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছান।

ঘটনার গুরুত্বের কথা বিবেচনা করে দ্রুত ঘটনাস্থলে আসেন মন্ত্রী অরূপ রায় এবং রাজীব বন্দোপাধ্যায়। এলাকায় উত্তেজনা থাকায় পুলিশ পিকেট বসানো হয়েছে। অভিযোগ, আবাসনের পরিত্যক্ত জায়গায় ঘন জঙ্গলের মধ্যে লুকিয়ে থাকছে দুষ্কৃতীরা। এলাকার মানুষ ওই জঙ্গলের মধ্যে থেকেই দুষ্কৃতীদের খুঁজতে চান।

দুদিন আগেই চোর সন্দেহে জোড়া গণপিটুনির ঘটনা ঘটেছিল হাওড়ায়৷ প্রথম ঘটনাটি মল্লিক ফটকের কাছে গোপাল চন্দ্র মুখার্জি লেনে৷ দ্বিতীয়টি বেলুড়ে৷ ঘটনার দিন দুপুরে গোপাল চন্দ্র মুখার্জি লেনের ঘোড়াডাঙায় এক যুবককে বেধড়ক পেটায় স্থানীয় বাসিন্দারা৷ অভিযোগ, সে গ্যাস সিলিন্ডার চুরি করে পালাচ্ছিল৷ কিন্তু স্থানীয় বাসিন্দারা ধরে ফেলে৷ এরপর তাকে গাছে বেধে চলে বেদম প্রহার৷

হাওড়ার বেলুড়ের ভোটবাগানে শিশু-চোর সন্দেহে এক যুবককে আটকে রেখে মারধর করে স্থানীয় মানুষ। জানা যায়, ওই যুবক এক বছরের একটি শিশুকে চাদরের মধ্যে জড়িয়ে নিয়ে যাওয়ার সময় হাতেনাতে ধরা পড়ে যায়। ঘটনা জানাজানি হতেই মুহূর্তের মধ্যে প্রচুর লোকজন সেখানে জড়ো হয়। শুরু হয় গণপ্রহার। বেলুড় থানার পুলিশ এসে তাকে উদ্ধার করে। এরপর শুক্রবারের এই ঘটনায় উত্তপ্ত এলাকা৷