স্টাফ রিপোর্টার, বারুইপুর ও বহরমপুর: দুটি ভিন্ন জায়গা থেকে প্রচুর পরিমান বিস্ফোরক ও তিনটি তাজা বোমা উদ্ধার করল পুলিশ৷ ঘটনা দুটি ঘটেছে দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার মগরাহাট থানার উড়ালচাঁদপুর গ্রামে ও মুর্শিদাবাদে সামশেরগঞ্জ এলাকায়৷

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রতিদিনের মত উড়ালচাঁদপুর গ্রামে শুক্রবার সকালে মন্দিরে গিয়ে বসেছিলেন গ্রামের কয়েকজন বয়স্ক মানুষ৷ সেই সময় গ্রামের কয়েকজন বাচ্চা ছেলে খেলতে খেলতে তিনটি বোতল দেখে চিৎকার করে ওঠে৷

বাচ্চাদের চিৎকারে ছুটে যান বয়স্করা৷ তাঁরা গিয়ে দেখেন বোতলের মত দেখতে তিনটি বোমা পড়ে রয়েছে৷ সঙ্গে সঙ্গে খবর দেওয়া হয় মগরাহাট থানায়৷ ঘটনাস্থলে এসে পুরো এলাকাটি ঘিরে ফেলে পুলিশ৷ এরপরই খবর দেওয়া হয় বোম স্কোয়াড বিভাগে৷ বোম স্কোয়াডের পাঁচ জনের একটি দল এসে বোমাগুলি নিষ্ক্রিয় করে৷ তবে মন্দিরের পাশে কীভাবে বোমাগুলি এল তা নিয়ে পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে৷

অন্যদিকে, দীর্ঘদিন তল্লাশি চালানোর পর বৃহস্পতিবার গভীর রাতে সাফল্য পেল মুর্শিদাবাদের সামশেরগঞ্জ থানার পুলিশ৷ গোপন সূত্রের খবর পেয়ে এদিন সামশেরগঞ্জ এলাকায় অভিযান চালিয়ে প্রচুর পরিমান বিস্ফোরক সহ দুই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করে পুলিশ৷

ধৃতদের নাম সাদিকুল খান ও মঙলু খান৷ দুই দুষ্কৃতি সুতি থানা এলাকার বাসিন্দা বলে জানা গিয়েছে৷ ধৃতদের কাছ থেকে উদ্ধার হয় প্রায় ১০০ কেজি বোমা তৈরির মশলা৷ ধৃতদের শুক্রবার জঙ্গীপুর মহকুমা আদালতে তোলা হলে ঘটনার তদন্তের জন্য পাঁচ দিনের পুলিশ হেফাজতে নেওয়ার আবেদন জানায় সামশেরগঞ্জ থানার পুলিশ৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।