তুরিন: বছর শুরুতে পুরনো অভিযোগে ফের কপালে হাত ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর৷ ৯ বছর আগের ধর্ষণ মামলা নিয়ে ফের অস্বস্তিতে পড়লেন বিশ্বফুটবলের মেগা স্টার৷

ক্রিশ্চিয়ানোর বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলায় এবার কড়া পদক্ষেপ নিল লাস ভেগাস পুলিশ৷ ২০১৮-র শেষদিকে পর্তুগিজ ফুটবলের পোস্টার বয়ের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ তুলে কোর্টে গিয়েছিলেন মার্কিন মহিলা ক্যাথরিন মায়োরগা৷ গুরুতর অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত চলছিলই৷ তদন্তের অঙ্গ হিসেবে এবার রোনাল্ডোর ডিএনএ টেস্ট হতে চলেছে৷

আরও পড়ুন-বোর্ডের শো-কজের উত্তর দিলেন পান্ডিয়া

রোনাল্ডোর বিরুদ্ধে ডিএনএ নমুনা সংগ্রহের ওয়ারেন্ট জারি করেছে লাস ভেগাস পুলিশ৷ পুরো ঘটনা জুড়ে স্বভাবতই বছর শুরুতেই মুখ পুড়ছে ক্রিশ্চিয়ানোর৷ বিতর্ক যেন কিছুতেই পিছু ছাড়ছে না সি আর সেভেনকে৷

২০০৯ সালে লাস ভেগাসের এক হোটেলে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ঐ মহিলার সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়ে ছিলেন পর্তুগিজ ফুটবলের পোস্টার বয়৷ সেই মহিলাই পরবর্তী সময়ে ক্রিশ্চিয়ানোর বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ এনেছেন৷ অভিযোগ উড়িয়ে না দিয়ে রোনাল্ডো পুরো ঘটনার দায় নিয়ে জানিয়ে দেন, পুরো ঘটনাই দু’জনেরই সম্মতিতে ঘটেছিল৷

মহিলার আনা অভিযোগের ভিত্তিতে মামলার পাশাপাশি, লাস ভেগাস পুলিশ রোনাল্ডোর বিরুদ্ধে পৃথক একটি মামলা রুজু করে তদন্ত চালাচ্ছে৷ সেই মামলাতেই ইতালির পুলিশের কাছে রোনাল্ডোর ডিএনএ নমুনা সংগ্রহ করে দেওয়ার জন্য অনুরোধ জানিয়েছে লাস ভেগাস পুলিশ৷ বর্তমানে ইতালির ক্লাব জুভেন্তাসে খেলেন ৩৩ বছর বয়সী পর্তুগীজ তারকা৷

আরও পড়ুন- পান্ডিয়া-লোকেশের বিকর্তিক মন্তব্য নিয়ে মুখ খুললেন কোহলি

অভিযোগকারিণী মহিলা দাবি করেছেন ধর্ষণের পর মোটা অঙ্কের টাকা দিয়ে তাঁর মুখ বন্ধ করা হয়েছিল৷ কুকীর্তি চেপে রাখতেই মোটা অঙ্কে চুপ করিয়ে রাখা হয় তাঁকে৷ নয় বছর পর অবশ্য মহিলার আইনজীবী রোনাল্ডোর সেই কাণ্ড প্রকাশ করে বিতর্কের ঝড় তুলে দেয়৷