স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: রামনবমীর মিছিলে গুলি করে খুনের ঘটনায় গ্রেফতার হলেন ভাটপাড়ার এক বিজেপি নেতা। ধৃতের নাম প্রিয়াংগু পান্ডে। গোপন সূত্রে খবর পেয়ে ভাটপাড়ার ওই বিজেপি যুবমোর্চার নেতা প্রিয়াংগুকে কলকাতা থেকে মঙ্গলবার রাতে গ্রেফতার করে জগদ্দল থানার পুলিশ। ধৃত প্রিয়াংগুর বিরুদ্ধে ৩০২ ধারায় খুনের মামলা রুজু করা হয়েছে৷ বুধবার ধৃতকে বারাকপুর আদালতে তোলা হলে আদালত ধৃতকে পাঁচ দিনের পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দেয়।

প্রসঙ্গত, চলতি বছরের ২৫ মার্চ ভাটপাড়ায় তৃণমূল কংগ্রেসের আয়োজিত রামনবমীর মিছিলে গুলি চালনার ঘটনা ঘটে। সেই সময় গুলি বিদ্ধ হয়ে খুন হয় কাঁকিনাড়ার স্থানীয় বাসিন্দা মকসুদ খান। সেই ঘটনাকে কেন্দ্র করেই উত্তপ্ত হয়ে উঠেছিল রাজ্য রাজনীতি গোটা মহল। সেই গুলি চালনার ঘটনার নেপথ্যে কে বা কারা জড়িত তদন্ত শুরু করেছিল জগদ্দল থানার পুলিশ।

অবশেষে সেই তদন্তের কিনারা করল পুলিশ৷ রামনবমীর মিছিলে গুলি করে মকসুদ খানকে খুনের ঘটনায় গ্রেফতার করা হল বিজেপি নেতা প্রিয়াংগু পান্ডেকে। বুধবার দুপুরে জগদ্দল থানার পুলিশ খুনের ঘটনায় অভিযুক্ত প্রিয়াংগুকে বারাকপুর আদালতের কোর্ট লকআপে নিয়ে আসে। ঘটনার প্রসঙ্গে অভিযুক্ত বিজেপি যুব মোর্চা নেতা প্রিয়াংগু পান্ডে সাংবাদিকদের বলেন, ‘‘আমি রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রের শিকার হয়েছি। আমি ওই দিন গুলি চালাই নি। যেখানে গুলি চলেছে ওই ঘটনাস্থলে আমি ছিলামই না। আমার একটু নাম হয়েছে বিজেপি করে৷ তাতে শাসকদলের ছেলেরা ভয় পেয়েছে।’’

পাশাপাশি তিনি আরও বলেন, ‘‘আমাকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রনোদিত ভাবে ফাঁসানো হয়েছে। এই বিষয়ে আমি কিছুই জানি না৷’’ এদিন বারাকপুর আদালতে প্রিয়াংগুকে নিয়ে আসার সময় তার অনুগামীরা বুধবার দুপুরে কোর্ট লকআপের সামনে বিক্ষোভ দেখায়। পরে বিক্ষোভকারী ওই বিজেপি কর্মীদের কোর্ট চত্বর থেকে হটিয়ে দেয় পুলিশ। এদিকে খুনের দায়ে অভিযুক্ত প্রিয়াংগুকে বুধবার দুপুরের পর বারাকপুর আদালতে বিচারকের সামনে হাজির করানো হয়৷ সেখানে বিচারক ওই বিজেপি নেতাকে পাঁচ দিনের পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দেন।