স্টাফ রিপোর্টার, বাঁকুড়া: এলাকায় কর্মরত ভিলেজ পুলিশ ও দুই সিভিক ভলান্টিয়ারের তৎপরতায় প্রাণে বাঁচলো বছর দেড়েকের এক শিশুকন্যা। ঘটনাটি শনিবার বাঁকুড়ার তালডাংরার হাড়মাসড়া গ্রামের।

স্থানীয় সূত্রে খবর, দিনমজুর পরিবারের সন্তান লক্ষ্মী বাউরি নামে বছর দেড়েকের ঐ শিশু কন্যাটি এদিন বাড়িতে খেলতে খেলতে কোন কারণে রান্নাঘরে ঢুকে ফুটন্ত ভাতের ফ্যানের মধ্যে পড়ে যায়। ফলে শরীরের বেশ কিছুটা অংশ ঐ গরম ফ্যানে পুড়ে যায়। এই খবর পাওয়া মাত্র গ্রামে কর্মরত ভিলেজ পুলিশ সঞ্জীব বারিক ও দুই সিভিক ভলান্টিয়ার শ্যামসুন্দর চক্রবর্ত্তী, শেখ নূর আলম তৎক্ষণাৎ ঐ বাড়িতে ছুটে যান৷

শিশু কন্যাটিকে উদ্ধার করে নিজেদের বাইকে চাপিয়ে হাড়মাসড়া গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে চিকিৎসক গুরুতর আহত ঐ শিশুর দ্রুত চিকিৎসার ব্যবস্থা করেন। চিকিৎসক জানিয়েছেন, দ্রুততার সঙ্গে চিকিৎসা শুরু না করতে পারলে বড় ধরণের দুর্ঘটনার আশঙ্কা ছিল। বর্তমানে শিশুটি বিপদমুক্ত বলে চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন৷

পড়ুন: বরানগর জুটমিলে আগুন

ভিলেজ পুলিশ ও কর্তব্যরত সিভিক ভলান্টিয়ারের এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন এলাকার মানুষ। আহত শিশুর বাবা বুবাই লোহার বলেন, ‘বাড়িতে ছিলাম না। অন্যের জমিতে চাষের করতে গিয়েছিলাম। আমার অনুপস্থিতিতে ভিলেজ পুলিশ ও সিভিক ভলান্টিয়াররা যেভাবে আমার মেয়েকে বাঁচাতে এগিয়ে এসেছেন তা আজীবন মনে থাকবে। ভিলেজ পুলিশ ও সিভিক ভলান্টিয়ারদের এই মানবিক উদ্যোগকে বাঁকুড়া জেলা পুলিশের পক্ষ থেকেও স্বাগত জানানো হয়েছে।’