স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: হামলার অভিযোগে এক বিজেপি কর্মীকে গ্রেফতার করতে এসে, ওই কর্মীর বাড়িতে ব্যাপক ভাঙচুরের পাল্টা অভিযোগ উঠল পুলিশের বিরুদ্ধে। বুধবার এই ঘটনার জেরে চাঞ্চল্য ছড়ায় নোয়াপাড়া থানার অন্তর্গত পিনকল ইস্ট ঘোষপাড়া রোডে।

মঙ্গলবার গভীর রাতে অভিযুক্ত ওই বিজেপি কর্মীকে গ্রেফতার করতে আসে নোয়াপাড়া থানার পুলিশ। সেই সময় অভিযুক্ত তরুণ সিং বাড়িতে না থাকায় পুলিশ কর্মীরা তার বাড়িতে হামলা চালায় বলে অভিযোগ উঠেছে।

সূত্রের খবর, বিজেপি কর্মী তরুণ সিংকে খুঁজতে মঙ্গলবার গভীর রাতে তার বাড়িতে আসে নোয়াপাড়া থানার পুলিশ। সেই সময় বাড়িতে ছিলেন না অভিযুক্ত তরুণ সিং। কিন্তু বাড়িতে তার মা, বাবা এবং বোনেরা সবাই ছিল। জানা গিয়েছে, তরুণকে বাড়িতে না পেয়ে, নোয়াপাড়া থানার পুলিশকর্মীরা ওই বাড়ির মহিলা সদস্যদের ব্যাপক মারধর করে বলে অভিযোগ উঠে।

এই বিষয়ে তরুণের মেজ দা বরুণ সিং অভিযোগ করে জানিয়েছেন,”মহিলা পুলিশকর্মী ছাড়াই নোয়াপাড়া থানার পুলিশ কর্মীরা আমার মা বোনকে মেরেছে । ঘরে তাণ্ডব করে আমাদের ঘর থেকে নগদ প্রায় দেড় লক্ষ টাকা, মা ও বোনের সোনার গয়না এবং আমাদের পরিচয় পত্র সহ যাবতীয় কাগজপত্র লুঠ করেছে। থানায় বাড়ির মহিলারা গেলে তাদের পুলিশ জানিয়েছে, আমার ছোট ভাই নাকি পুলিশের গাড়িতে ইঁট মেরেছে। আসলে আমরা বিজেপি দল করি। তাই পুলিশ আমাদের উপর এই রকম অত্যাচার করছে। আমরা কি গণতান্ত্রিক দেশে নিজের পছন্দের পার্টিও করতে পারব না ?”

এদিকে অভিযুক্ত তরুণ সিং’কে না পেয়ে পুলিশ তার দাদা অরুণ সিংকে আটক করে। বুধবার ভোরবেলায় তাকে শ্যামনগর গভমেন্ট কোয়ার্টার এলাকায় তার শ্বশুর বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যায়। এই ঘটনা শোনার পরই আক্রান্ত দলীয় কর্মী অরুণ সিংয়ের বাড়িতে ছুটে আসেন বারাকপুরের বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং। আসেন নোয়াপাড়ার বিধায়ক সুনীল সিং সহ অন্যান্য স্থানীয় বিজেপি নেতারা। সাংসদ অর্জুন সিং এদিন পুলিশের হাতে আক্রান্ত ওই পরিবারের মহিলা বিজেপি কর্মীদের সঙ্গে কথা বলেন। এবং তাদের পাশে থাকার আশ্বাসও দিয়েছেন।

অর্জুন সিং বলেন, “রাজ্যে মহিলা মুখ্যমন্ত্রী হওয়া সত্ত্বেও মিথ্যা অভিযোগে আমাদের দলের মহিলা সমর্থকদের উপর নোয়াপাড়া থানার পুলিশ কর্মীরা লাঠিচার্জ করেছে। আমাদের দলের কর্মী তরুণ সিংকে মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে। এই পরিবারের সদস্যরা কেন বিজেপি করছে? সেটাই ওদের অপরাধ। পুলিশ ওদের জরুরি কাগজপত্র, টাকা, সোনা সবই লুঠ করে নিয়ে গিয়েছে বলে শুনলাম। ঘরে ভাঙচুর করা হয়েছে। যেহেতু পুলিশ এই ঘটনা ঘটিয়েছে, থানায় তো অভিযোগ হবে না। পুলিশের বিরুদ্ধে যত দ্রুত সম্ভব আমরা আদালতে গিয়ে মামলা করব। যে অত্যাচার করা হয়েছে তা পুলিশ করতে পারে না। কারুর বিরুদ্ধে অভিযোগ থাকলে তাকে খুঁজতে আসতেই পারে পুলিশ। কিন্তু তার বাড়ি লুঠ করবে পুলিশ, এটা ভারতবর্ষের কোনও সংবিধানে লেখা নেই। এই পরিবারের পাশে আছি আমরা।”

এদিকে পুলিশ সূত্রের খবর, অভিযুক্ত ওই সিং পরিবারের ছেলেদের বিরুদ্ধে একাধিক দুষ্কৃতী মূলক কাজ করার অভিযোগ রয়েছে। তরুণ সিং নামের ওই অভিযুক্ত পুলিশের গাড়িতে হামলা করে পালিয়ে গিয়েছে । ওই হামলাকারীর খোঁজে সন্ধান চলছে। গোটা ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে নোয়াপাড়া থানার পুলিশ।