স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: অসময়ে দিদিকে পাশে পেয়েছিলেন৷ সেই কৃতজ্ঞতা থেকেই দিদি মমতার ব্রিগেডে এলেন কবি শ্রীজাত৷ এই প্রথম তৃণমূল কংগ্রেসের মঞ্চে উঠলেন তিনি৷ শুধু মঞ্চে এলেনই না সহিষ্ণুতার বার্তা দিয়ে কবিতাও পাঠ করলেন৷ সমালোচকরা বলছেন, এবার কবি শ্রীজাতের অন্য পরিচয় মিলতে শুরু করল৷

গত শনিবার অসমের শিলচরে একটি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে যোগ দিতে গিয়ে কট্টরপন্থী হিন্দুত্ববাদীদের রোষের মুখে পড়েছিলেন কবি শ্রীজাত৷ রাতেই পুলিশ পাহারায় কবিকে হোটেল থেকে নিয়ে যাওয়া হয় সার্কিট হাউসে। ঘটনায় উদ্বিগ্ন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় শ্রীজাতকে ফোন করে খোঁজ নেন। আশ্বস্ত করে বলেন, চিন্তা না করতে। তিনি বিষয়টি দেখছেন। অসমে কথাও বলেছেন। মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশের পরে ফিরহাদ এবং অরূপ শ্রীজাতের সঙ্গে কথা বলেন। এরপর রবিবার সকালের বিমানে তাঁকে কলকাতায় নিয়ে আসা হয়৷

ওইদিন দিদিকে পাশে পেয়ে স্বস্তি পেয়েছিলেন কবি৷ শ্রীজাত এদিন তাঁর প্রতিদান দিলেন বলেই মনে করছে কবি-সাহিত্যিক মহলের একাংশ৷ কারণ শ্রীজাতকে এতদিন কোনও রাজনৈতিক মঞ্চে দেখা যায়নি৷ তাঁর সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে একাধিক কবিতা লিখলেও মমতার বিজেপি বিরোধীয় তিনি কোনওদিন গলা মেলাননি৷ এরাজ্যের বহু কবি-সাহিত্যিক তৃণমূলপন্থী হলেও তিনি রাজনৈতিক দলগুলির থেকে সমদূরত্ব রেখেই চলতেন৷ তবে ১৯ জানুয়ারি ব্রিগেডের মহা সমাবেশে শ্রীজাতর উপস্থিতি তাঁর আগামী দিনে মমতা ঘনিষ্টতা বাড়ার ইঙ্গিত বলেই মনে করছে কবি-সাহিত্যিক মহল৷