ফাইল ছবি

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: NRC ইস্যুতে থেমে থাকল না তাঁর কলম। এর আগেও নানা অন্যায়ের প্রতিবাদে গর্জে উঠেছিল তাঁর প্রতিবাদী কলম। কবিতাই হয়ে ওঠে তাঁর প্রতিবাদের ভাষা। এবার তিনি কলম ধরলেন অসমের বিপন্ন মানুষদের জন্য। বুধবার নিজের ফেসবুক দেওয়ালে কবি মন্দাক্রান্তা সেন লেখেন ‘উদ্বাস্তু জন্মের আগে’ নামের একটি কবিতা।

কবিতাটিতে উঠে এসেছে বিপন্ন মানুষের বীভৎস জীবনচিত্র। কবিতাটিতে তিনি লেখেন:

কী হতো কী হতো কী হতো
ওই গর্ভ থেকে জন্ম নিত আরেক বিধর্মী?
ওদের হাতে পায়ে মুখে বুকে পেটে পিঠে নিতম্বে
দাগিয়ে দিচ্ছ ধর্মের বীভৎস উল্লাস
কালশিটের দাগে আঁকছ পছন্দসই মানচিত্র
কোনটা আমার দেশ? কোনটা ‘ওদের’?

ওদের দেশ থাকতে নেই
ওই ছিঁড়ে যাওয়া ভ্রূণের মতো ওরা ছিন্নমূল
যে জন্মের আগে থাকতেই উৎপাটিত, উদ্বাস্তু
কী পিছল কী পিছল ওই স্রাব
আহ্ পা পিছলে যাচ্ছে দাঁড়ানো যাচ্ছে না

আআআআআআআ
পা পিছলে যাচ্ছে আমারও
আমাকে দাঁড়ানোর জায়গা দাও
আমার পায়ের নিচে মাটি সরে যাচ্ছে, বাঁচাও
একটুকরো মাটি দাও

আমার উলঙ্গ শরীরের মাটি
যার কোনও ধর্ম নেই, বিশ্বাস করো
এই শুধু একটুকরো বাঁচতে চাওয়া ছাড়া

বোঝাই যাচ্ছে অসমে নাগরিক পঞ্জির চূড়ান্ত তালিকা বহির্ভূত মানুষদের জন্য কবি মন্দাক্রান্তার মন এই মুহূর্তে ক্ষতবিক্ষত। তারই প্রতিফলন ঘটল কবিতায়। অসহায় মানুষের ব্যথা সইতে পারেন না মন্দাক্রান্তা। প্রয়োজনে রাস্তায় নেমে প্রতিবাদ করেন। এর আগে প্রাথমিক শিক্ষকদের ন্যায্য দাবির আন্দোলনে সামিল হতে দেখা গিয়েছে আনন্দ পুরস্কারপ্রাপ্ত এই কবিকে। আগামী দিনেও তাঁর কলম প্রতিবাদে গর্জে উঠবে এমনটাই মনে করে অভিজ্ঞ মহল।