নয়াদিল্লি ও কলকাতা: ভারতীয় রেলের বেসরকারিকরণের প্রক্রিয়া বন্ধ করার দাবি তুলল সিপিএম।বৃহস্পতিবার দলের পলিটব্যুরোর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, বিশ্বে কোথাও রেলের বেসরকারিকরণের ফলাফল ভালো হয়নি। এই বিষয়ে কেন্দ্রের বিজেপি সরকারকে সতর্ক করতে মনে করিয়ে দেওয়া হয়েছে করোনা মহামারীতে মুনাফা দৌড়ে ব্যস্ত ব্যবসায়ীদের হাতে স্বাস্থ্যব্যবস্থা তুলে দেওয়ার করুণ পরিণতি।

কেন্দ্রের এমন উদ্যোগের সমালোচনা করতে দেখা গিয়েছে বামফ্রন্ট চেয়ারম্যান বিমান বসুকে। প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদী এহেন আচরণ দেখে কটাক্ষ করে বিমান বসু বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী আত্মনির্ভরতার কথা বলে দেশকে বিক্রি করে দিচ্ছেন। ওর কাছে আত্মনির্ভরতার সংজ্ঞা হয়তো বিক্রি করে দেওয়া। মহম্মদ সেলিমকেও একই সুরে প্রশ্ন তুলেছেন, দেশের সম্পদ রক্ষা করাটা দেশপ্রেম নাকি তা বিক্রি করাটা দেশপ্রেম?

এক বছর আগে নীতিগত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল, ভারতীয় রেলের বেশ কিছু রুটে বেসরকারি ট্রেন চালানো হবে। এবার রেল বোর্ডের মাধ্যমে জানা গিয়েছে দেড়শোটি রুটে এইভাবে ট্রেন চলতে পারে। এবার রেল বোর্ড দরপত্রের আহ্বান জানাচ্ছে। অর্থাৎ করোনা মহামারীর সময় রেলের বেসরকারিকরণ প্রক্রিয়া শুরু হচ্ছে।

ভারতীয় রেলের এভাবে বেসরকারীকরণ এর বিরোধিতা করে পলিটব্যুরোর পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, স্বাধীন ভারতে এই পথম বেসরকারি ট্রেন নামানো হচ্ছে। এতদিনের বিপুল পরিকাঠামো ছেড়ে দেওয়া হচ্ছে বেসরকারি সংস্থাগুলির কাছে যাতে তারা যাত্রীবাহী ট্রেন চালিয়ে মুনাফা করতে পারে।

কেন্দ্রীয় সরকারের আশা বেসরকারি হাতে ট্রেন চালানো সুযোগ দিলে এই ক্ষেত্রে বিনিয়োগ বাড়বে বাড়বে চাকরির সুযোগ। যদিও সিপিএমের পাল্টা যুক্তি, অতীতের অভিজ্ঞতা দেখিয়েছে বেসরকারিকরণের ফলে চাকরি হারিয়েছে মানুষ।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ