নয়াদিল্লি: কীভাবে ফিট থাকেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। কোথা থেকে আসে সারা বছর একটানা কাজ করে চলার অফুরন্ত এনার্জি। ফাঁস করলেন সেই তথ্য প্রধানমন্ত্রী নিজেই। বৃহস্পতিবার মোদী ফিট ইন্ডিয়া মুভমেন্ট শীর্ষক অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন।

পড়ুন আরও- ব্যবহার করা কন্ডোম ধুয়ে ফের যাচ্ছিল বাজারে, ফাঁস হল বড়সড় চক্র

সেখানে উপস্থিত ছিলেন নিউট্রিশনিস্ট রুজুতা দিবাকর, ক্রিকেটার বিরাট কোহলি, মডেল-অভিনেতা মিলিন্দ সোমান। এদিন মোদী বলেন তাঁর ফিটনেসের পিছনে রয়েছে এক রেসিপি। যা তাঁকে অফুরন্ত এনার্জি যোগায়। এদিন নিউট্রিশনিস্ট রুজুতা দিবাকর বলেন বাড়িতে সাধারণ খাবার খেয়েই ফিট থাকা যায়।

এজন্য প্যাকেটজাত খাবার না খাওয়াই ভালো। ইট লোকাল, থিংক গ্লোবাল নামে দিবাকরের এই মন্ত্রকে ব্যাখ্যা করেন মোদী। মোদী বলেন প্রতিযোগিতা নামতে গেলে ফিট থাকা প্রয়োজন। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের জেরে ফিটনেস চর্চায় বিশেষ গতি এসেছে।

পড়ুন আরও- সূচ ছাড়াই নেওয়া যাবে ভ্যাক্সিন, অভিনব আবিস্কার বিজ্ঞানীদের

মোদী বলেন, ফিটনেস কি ডোজ, আধা ঘন্টা রোজ। করোনার জেরে সাধারণ মানুষ অনেক বেশি স্বাস্থ্য সচেতন হয়েছেন বলে জানান প্রধানমন্ত্রী। মোদীর মত যে কোনও বয়সের মানুষের নিজের ফিটনেস মন্ত্র তৈরি করতে পারেন। তাঁর নিজেরও এরকম মন্ত্র রয়েছে।

তিনি বলেন, প্রতিদিন তাঁর খাবারে থাকে ড্রামস্টিক ফ্ল্যাটব্রেড। প্রতি সপ্তাহে একবার করে পরোটা খান তিনি। যে খাবার খান তা পরিমিত ও পুষ্টিকর। এদিন নিউট্রিশনিস্ট রুজুতা দিবাকর প্রধানমন্ত্রীকে জিজ্ঞাসা করেন করোনার সঙ্গে লড়াই করতে হলুদ খান কিনা। তখন মোদী বলেন প্রতি সপ্তাহে দু তিন বার তাঁর মায়ের সাথে কথা হয়। প্রতিবারই মা তাঁকে জিজ্ঞাসা করেন হলুদ খাচ্ছেন কিনা।

এদিন, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে টেলিকনফারেন্সে ইয়ো-ইয়ো টেস্টের উপকারিতা বোঝান টিম ইন্ডিয়া অধিনায়ক বিরাট কোহলি৷ প্রধানমন্ত্রী মোদী ‘ফিট ইন্ডিয়া মুভমেন্টের এক বছর পূর্তি উপলক্ষে দেশজুড়ে ফিটনেস বিশেষজ্ঞ এবং প্রভাবশালীদের সঙ্গে আলাপচারিতা করছিলেন।

এখানেই ‘ইয়ো-ইয়ো টেস্ট’ কী, টিম ইন্ডিয়ার ক্যাপ্টেন বিরাট কোহলির কাছে তা জানতে চান মোদী। এই বিষয়ে কথা বলেন কোহলির সঙ্গেও।

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।